কয় স্পিনারে সাজছে বাংলাদেশ?

0
114

স্পোর্টস ডেস্ক: একই নেটে পাশাপাশি দাঁড়িয়ে বল ছুঁড়লেন রাজ্জাক, তাইজুল ও তানবীর। অন্য নেটে সানজামুল। প্রথমবার জাতীয় দলে ডাক পাওয়া নাঈম জহুর আহমেদের সবুজ ঘাসের ওপর একাকী বোলিং করে গেলেন এইচপি কোচ সায়মন হেলমটকে সঙ্গী করে। আর নেটে ব্যাটিং অনুশীলন করতে ড্রেসিংরুম থেকে বেরোলেন মিরাজ। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম টেস্টের স্কোয়াডে থাকা এ ছয়জনই স্পিনার। নিজেদের অনুশীলনে মনযোগী সবাই। সিরিয়াসনেস মেপে বোঝার উপায় নেই তাদের কে বুধবারের টেস্টে একাদশের থাকার সংকেত পেয়েছেন, আর কে বাইরে।

সাগরিকার তীরে কয়জন স্পিনার নিয়ে নামবে বাংলাদেশ? সেই প্রশ্নের উত্তর না মেলার মাঝেই ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে কৌতূহল আরও বাড়িয়ে দিলেন সাকিবের চোটে অধিনায়কত্বের ভার সামলাতে যাওয়া মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

‘ছয়জন স্পিনার থাকা, মানে আপনারাও হয়ত অনুমান করতে পারছেন কি হতে যাচ্ছে! উইকেট সম্ভবত স্পিন সহায়ক হবে। আমরা হোম কন্ডিশনে স্পিনারদের উপর ভরসা করি। আমাদের এই বিভাগ বেশ ভাল, শক্তিশালী। সাকিব নেই, আমরা সেটা পুষিয়ে নেয়ার চেষ্টা করবো।’

সাগরিকায় সবশেষ টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তিন স্পিনার নিয়ে খেলেছে বাংলাদেশ। সাকিব-তাইজুল-মিরাজ ত্রয়ী ছিলেন উইকেট ব্যাটিং সহায়ক হওয়ার পরও। তবে এবার জহুর আহমেদের পাঁচ নম্বর উইকেট থেকে আগের চেয়ে বেশি টার্ন মেলার কথা। তাতে লঙ্কানদের বিপক্ষে প্রথম টেস্টের টাইগার একাদশে ৪জন স্বীকৃত স্পিনার দেখা গেলেও খুব অবাকের কিছু থাকবে না। সফরকারী অধিনায়ক দিনেশ চান্দিমালও উইকেটে চোখ বুলিয়ে এসে ‘নিঃসন্দেহে টার্নিং উইকেটে’র সার্টিফিকেট দিয়েছেন।

সেভাবেই একাদশ সাজাচ্ছে লঙ্কানরা। অভিজ্ঞ স্পিনার রঙ্গনা হেরাথের সঙ্গে অফস্পিনার দিলরুয়ান পেরেরা থাকছেন। ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে গুরুত্বপূর্ণ সময়ে দুই স্বাগতিক ব্যাটসম্যানকে সাজঘরে পাঠিয়ে ব্যবধান গড়ে দেয়া আকিলা ধনঞ্জয়াকেও দেখা যেতে পারে একাদশে।

রানপ্রসবা হিসেবে খ্যাতি পাওয়া জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের উইকেট এ ম্যাচের জন্য সর্বোচ্চ স্পিনবান্ধব হচ্ছে সেটি আর গোপন নেই তাই। আসল লড়াইটা হতে যাচ্ছে দুই দলের স্পিনারদের মাঝেই। তাতে ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি অবস্থা সামলাতে হবে ব্যাটসম্যানদের।

টেস্টে পরীক্ষিত অফস্পিন-অলরাউন্ডার মিরাজ তাই হয়ত থাকছেনই। এক সাকিবের অভাব পূরণে রাজ্জাক ও তাইজুলের মিলিত যোগফলে ভরসা রাখা হতে পারে। চতুর্থ স্পিনার হিসেবে সেখানে তানবীর বা নাঈমের কারও অভিষেক হয়ে যাওয়াটাও অসম্ভব কিছু মনে হচ্ছে না। সাগরিকার স্পিনস্বর্গে তখন এক পেসার নিয়ে নামতে পারে বাংলাদেশ। সেই একজন আবার মোস্তাফিজুর রহমান হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। দুই পেসার হলে রুবেল হোসেন বা কামরুল ইসলাম রাব্বির একজন। সম্ভাবনায় এগিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজে দারুণ করা ডানহাতি রুবেলই!

#বাংলাটপনিউজ/আরিফ