প্রশাসনের তৎপরতায় দুই স্কুল ছাত্রীর বাল্য বিয়ে বন্ধ

0
15

শরীয়তপুর প্রতিনিধি ঃ শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলায় দুই স্কুল ছাত্রীর বাল্য বিয়ে বন্ধ করে দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাব্বির আহম্মেদ। বৃহস্পতিবার ওই স্কুল ছাত্রীদের বিয়ের আয়োজন করেন পরিবারের সদস্যরা। খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উপস্থিত হয়ে বিয়ে বন্ধ করে দেন।

ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্র জানায়, উপজেলার দক্ষিণ তারাবুনিয়া ইউনিয়নের কিরননগর উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী শাহানাজ আক্তারের (১৩) বিয়ের আয়োজন করেন পরিবারের সদস্যরা। একই উপজেলার সখিপুর ইউনিয়নের সখিপুর ইসলামিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্রী রোকশানা আক্তারের (১৫) বিয়ের আয়োজনও করা হয়। সংবাদ পেয়ে সাব্বির আহম্মেদ দুই স্কুল ছাত্রীর বাড়িতে উপস্থিত হন। স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের জন প্রতিনিধি, বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও গন্যমান্য ব্যক্তিদের সহায়তায় শিক্ষার্থীদের পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলে বিয়ে বন্ধ করে দেন। ওই স্কুল ছাত্রীদের বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের হাতে তুলে দেয়া হয়। পরিবারের সদস্যরা ইউএনওকে প্রতিশ্রুতি দেন প্রাপ্ত বয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত তাদের বিয়ে দেয়া হবে না।

সখিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মানিক সরদার বলেন, গ্রামের মানুষ আমাদের কথা না মেনে সন্তানদের অপ্রাপ্ত বয়সে বিয়ে দেয়। তখন আমরা অসহায় হয়ে পড়ি। বৃহস্পতিবার দশম শ্রেণীর ছাত্রীর বিয়ে হচ্ছে এমন খবর পেয়ে ইউএনও স্যাারের সাথে ওই ছাত্রীর বাড়িতে যাই। তাদের বুঝিয়ে বিয়ে বন্ধ করা হয়।

ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাব্বির আহম্মেদ বলেন, দুই স্কুল ছাত্রীর বিয়ে হচ্ছে এমন খবর পেয়ে বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের নিয়ে ছাত্রীদের বাড়িতে যাই। পরিবারের সদস্যদের বাল্য বিবাহের কুফল সম্পর্কে অবহিত করি। তখন তারা বিয়ে বন্ধ রাখতে রাজি হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here