নারায়ণগঞ্জ বন্দরের সোনাকান্দা থেকে জেএমবির নারী সদস্যসহ ৩ জন গ্রেফতার, উগ্রবাদী বই ও লিফলেট উদ্ধার !

0
24

মো:সহিদুল ইসলাম শিপু: নারায়ণগঞ্জ বন্দরের সোনাকান্দা এলাকায় র‌্যাব-১১ অভিযান চালিয়ে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জেএমবির নারী সদস্যসহ ৩ জনকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে জান্নাতুল নাঈম ওরফে মিতু (১৯) ও তার দুই সহযোগী মেহেদী হাসান ওরফে মাসুদ(২২) ও আকবর হোসেন সুমন (৩০)। এ সময় র‌্যাব সদস্যরা তাদের কাছ থেকে উগ্রবাদী বই ও লিফলেট উদ্ধার করে এবং মিতুর ২ বছরের শিশু সন্তান রোজা আক্তারকেও উদ্ধার করে।

র‌্যাব গত মঙ্গলবার রাতে এ অভিযান চালিয়ে জেএমবির ৩ সদস্যকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। গতকাল বুধবার দুপুরে র‌্যাব-১১ কার্যালয়ে এক প্রেসব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানায় র‌্যাবের সিইও লেঃ কর্নেল কামরুল হাসান। প্রেস ব্রিফিংয়ে র‌্যাব জানায়, গত ২ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের মোঃ নুরুল ইসলাম ও তার মেয়ের জামাই জুয়েলসহ র‌্যাব-১১ কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ করে তার মেয়ে জান্নাতুল নাঈম ওরফে মিতু জঙ্গি সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত এবং সে রাষ্ট্র বিরোধী ও নাশকতামূলক কর্মকান্ডে যুক্ত হওয়ার জন্য মিতু তার ২ বছরের শিশু সন্তান রোজাকে নিয়ে গত ৩১ মার্চ বাসা থেকে বের হয়ে গেছে।

ওই অভিযোগের ভিত্তিতে র‌্যাব তাদের গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি করে নারায়ণগঞ্জ ও চট্র্রগামসহ বিভিন্ন স্থানে একাধিক অভিযান পরিচালনা করে অবশেষে গত মঙ্গলবার রাতে নারায়ণগঞ্জ বন্দরের সোনাকান্দা নোয়াদ্দা কড়ইতলা এলাকার আমান উদ্দিন মিয়ার বাড়ি থেকে জঙ্গি সংগঠনের জড়িত থাকার অভিযোগে মিতু ও তার ২ সহযোগীকে গ্রেফতার করে। ধৃত মেহেদী হাসান ওরফে মাসুদের বাড়ি চট্রগ্রামের রাউজানে এবং আকবর হোসেন সুমনের বাড়ি নোয়াখালীর হাতিয়ায়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে র‌্যাবের কাছে মিতু স্বীকার করে ২০১৬ সালের জুলাই মাসে ফেইসবুক আইডি আল্লাহর সৈনিক এর মাধ্যমে জনৈক মেহেদী হাসান ওরফে মাসুদের সাথে তার পরিচয় হয় এবং মাসুদ মিতুকে বিভিন্ন উগ্রবাদী হিসেবে গড়ে তোলে, তাকে বাংলাদেশ সরকারের তাগুত বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই করে শহীদ হওযার আহবান জানালে মিতু তাতে সাড়া দেয়।

এর পর থেকে মিতু তার ফেইসবুক আইডি এসো ইসলামের পথে এবং আলোর পথ ইসলামসহ বিভিন্ন উগ্রবাদী মতবাদ প্রচার করতে থাকে। মিতু তার কাছের বন্দুদের কথিত জিহাদের দাওযাত দেওয়া শুরু করে এবং তার স্বামী জুয়েলকে উগ্রবাদের পথে আসার আহবান করে ব্যর্থ হয়ে স্বামীকে ত্যাগ করে কথিত শহীদ মৃত্যুবরণ করার লক্ষে হিযরত করার পরিকল্পনা করে। মিতু তার পরিকল্পনার কথা মেহেদী হাসান ওরফে মাসুদকে জানালে সে তাকে মাহরাম ছাড়া হিযরত করা যাবেনা বলে জানায়, এবং তার বন্ধু আকবর হোসেন ওরফে সুমনকে মাহরাম হিসেবে গ্রহন করার প্রস্তাব দেয়। এর পর মেহেদী তার বন্ধু আকবর হোসেন সুমনের সাথে মিতুর যোগাযোগ করিয়ে দেয় এবং তার স্বামীকে ডিভোর্স করার ও পরিকল্পনা করে।

সুমন ও মেহেদীর পরামর্শে মিতু গত ৩১ মার্চ তার নিজ বাড়ি থেকে চট্রগ্রামে চলে যায়। সুমন ও মেহেদী মিতুকে একটি ভাড়া বাসা ঠিক করে দেয় এবং মিতুকে শহীদ হওয়ার জন্য বিভিন্নধরনের কৌশল ও পরামর্শ প্রদান করে শহীদী মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত থাকতে বলে। পরে তারা নারায়ণগঞ্জ, কুমিল্লা ও ঢাকার জেএমবির সদসদের সাথে যোগাযোগ করে সংগঠনের কর্মী সংগ্রহের জন্য দেশের বিভিন্নস্থানে সফরের পরিকল্পনা করে। র‌্যাব আরো জানায়, মিতু ২০১৭ সালের সোনারগাঁয়ের মেঘনা শিল্পনগরীর স্কুল থেকে এসএসসি পাশ করে এবং একই কলেজে অধ্যায়নরত ছিল। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে র‌্যাব জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here