সংবাদ সম্মেলনে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী: তারেক আর বাংলাদেশের নাগরিক নন

0
83

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার স্ত্রী-কন্যার পাসপোর্ট যুক্তরাজ্যের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সমর্পণ করেছেন। সেখান থেকে পাসপোর্টগুলো লন্ডনে বাংলাদেশের দূতাবাসে পাঠানো হয়েছে। সেগুলো এখন বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে সেখানে রক্ষিত আছে। এমনটাই দাবি করেছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম।

তিনি একটি নথি দেখিয়ে বলেছেন, “এ হিসেবে আমার মতে তারেক রহমান এখন আর বাংলাদেশের নাগরিক নন।” সোমবার সন্ধ্যায় এক সংবাদ সম্মেলনে এসে তারেকের মেয়াদোত্তীর্ণ পাসপোর্টের কপিও দেখান প্রতিমন্ত্রী। পাসপোর্ট জমা দেয়ার প্রমাণ দেখাতে বিএনপির চ্যালেঞ্জ আর তারেক রহমানের উকিল নোটিসের পর এসব প্রমাণ নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে হাজির হন শাহরিয়ার আলম।

তারেক ব্রিটিশ হোম অফিসের মাধ্যমে ২০১৪ সালের ২ জুন তার নিজের, স্ত্রীর এবং মেয়ের পাসপোর্ট লন্ডনে বাংলাদেশ হাই কমিশনে ‘ফেরত পাঠান’ বলে জানান তিনি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, “এত কিছুর পরও যদি কারও কোনো প্রশ্ন থাকে, বিশেষ করে জাতীয়তবাদী দলের কেউ যদি আগ্রহী হন, আমরা ব্যবস্থা করব। লন্ডনে আমাদের বাংলাদেশ হাই কমিশনে গিয়ে দেখে আসবেন।”

গত শনিবার লন্ডনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে শাহরিয়ার আলমের বলেন, “তারেক জিয়া বাংলাদেশের সবুজ পাসপোর্ট হাই কমিশনে জমা দিয়ে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব বর্জন করেছেন। সেই তারেক রহমান কীভাবে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করে?”

তার ওই বক্তব্যকে ‘উড়ো ও অবান্তর’ আখ্যায়িত করে সোমবার সকালে আইনি ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারি দেয় বিএনপি। একটি উকিল নোটিস পাঠিয়ে ১০ দিনের মধ্যে প্রতিমন্ত্রীর ওই বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবি জানান তারেকের আইনজীবী।