পাটগ্রামে ভ্রাম্যমাণ আদালতে কাজীর জেল

0
145

শাহিনুর ইসলাম প্রান্ত, লালমনিরহাট প্রতিনিধি: একাধিক বিয়ের কাবিন নামা রেজিস্ট্রার ভলিয়ম কেটে জালিয়াতি করে দেন মোহর কম-বেশি করার অপরাধে লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম পৌরসভার ৭, ৮ ও ৯নং ওয়ার্ডের বিয়ে রেজিস্ট্রার কাজী ইউনুস আলীকে গতকাল বুধবার রাতে ভ্রাম্যমাণ আদালত ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড দিয়েছে।

জানা গেছে, পাটগ্রাম উপজেলার রসুলগঞ্জ গ্রামের রফিকুল ইসলামের মেয়ে হাসনু আরা রিফার সাথে দহগ্রাম ইউনিয়নের নবীবর রহমানের ছেলে বাবুল হোসেনের গত বছরের ৩০ আগস্ট বিয়ে হয়। বিয়েতে ধার্যকৃত দেন মোহর ৪ লাখ ৫ শত ২৫ টাকার স্থান কেটে জালিয়াতি করে কমিয়ে ১ লাখ ৫ শত ২৫ টাকা করা হয়। মেয়ের পরিবারের অভিযোগ ছেলে পক্ষের নিকট টাকা নিয়ে এ কাজ করেছে কাজী ইউনুস।

পাটগ্রাম উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক নূর কুতুবুল আলম বলেন, অভিযোগ তদন্ত করে দেখা যায় ০৯ নম্বর মূল ভলিয়মের ৬৪ নম্বরের ওই বিয়ের কাবিন নামায় দেন মোহরের পরিমাণে ব্লেড দিয়ে ঘসা মাজা করে প্রকৃত সংখ্যা পরিবর্তন করে অন্য অঙ্কের সংখ্যা বসানো হয়েছে।

ভ্রাম্যমাণ আদালতে কাজী ইউনুস এ অপরাধ স্বীকার করেন বলেন, পরবর্তিতে সঠিক জাবেদা নকল সরবরাহ করবেন। পাবলিক ডকুমেন্ট ঘষা মাজা বা কাটা ছেড়া করে তথ্য বিকৃত করার আইনগত কোনো সুযোগ নেই এবং আইন পরিপন্থি। তিনি জ্ঞাতসারে এ কাজ করায় সরকারি আদেশ অমান্যের অপরাধে দন্ডবিধি ১৮৬০ এর ১৮৮ ধারায় ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ডাদেশ দেয়া হয়েছে।

উল্লেখিত ভলিয়ম নিরীক্ষা করে দেখা গেছে, অধিকাংশ বিয়ের দেনমোহরের টাকার পরিমাণ কথায় না লিখে শুধুমাত্র অঙ্কে লিখেন। যা পরবর্তীতে জালিয়াতি করার কাজে ব্যবহার করা হয়। পাটগ্রাম থানা ওসি আরজু মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেন, আজ বৃহস্পতিবার সকালে কাজী ইউনুস আলীকে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।