প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ ছাড়া এই আপিল করা সম্ভব নয়: মোশাররফ হোসেন

0
19

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, খালেদা জিয়া আজকে সুপ্রিমকোর্টের ঘাড়ে বন্দুক রেখে অন্যায়ভাবে সরকারই তাকে কারাগারে আবদ্ধ রেখেছে। সরকার যদি আবদ্ধ না রাখতেন তাহলে হাইকোর্টে জামিন হওয়ার পরে সরকার পক্ষ থেকে আপিল করলো কেনো? সরকারের নির্দেশ ছাড়া অর্থাৎ প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ ছাড়া এই আপিল করা সম্ভব নয়।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্চে স্বাধীনতা ফোরামের উদ্যোগে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, বিশেষ সম্পাদক শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু, ছাত্র দলের সভাপতি রাজীব আহসানের মুক্তির দাবিতে আয়োজিত আলোচনা সভায় ড. মোশাররফ এ কথা বলেন।

ড. মোশাররফ বলেন, এই আপিল করে আবার আপিল বিভাগ এভাবে জামিন স্থগিত করা-এটা সর্বোচ্চ জায়গা থেকে ইঙ্গিত না হলে এই সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগ করতে পারে না। সরকারই আদালতকে পূর্ণাঙ্গভাবে নিয়ন্ত্রণ করে আমাদের নেত্রীকে কারাগারে রেখেছে।

একটি উদ্দেশ্য আগামী সংসদ নির্বাচনে খালেদা জিয়া ও বিএনপিকে বাইরে রেখে একটি প্রহসনের নির্বাচন করা।

আমরা বলতে চাই, যে আন্দোলনে স্বৈরাচারের পতন হয়, যে আন্দোলনে স্বৈরাচারের টনক নড়ে, আমাদেরকে সেই আন্দোলন করতে হবে- এটাই বার বার সরকার বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে আমাদেরকে বলে দিচ্ছেন। সেই ধরনের আন্দোলনের প্রস্তুতি গ্রহণ করার আমি আপনাদের আহবান জানাচ্ছি। সরকারকেও এই ব্যাপারে সাবধান করে দিচ্ছি, ২০১৪ সালে ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের নামে প্রহসন করেছেন সেই দিকে অগ্রসর হলে এবার জনগন তা হতে দেবে না। যেভাবে রাস্তা বন্ধ করতে হয় সেভাবে রাস্তা জনগন বন্ধ করবে এবং আমরা জনগনের পাশে থাকবো।

বুধবার সংবাদ সম্মেলনে দেওয়া ‘আমি কোনো প্রতিদান চাই না।

প্রতিদানের কী আছে এখানে? চাওয়ার অভ্যাস আমার একটু কম। দেওয়ার অভ্যাস বেশি’- প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যের সমালোচনা করে বিএনপির এই নেতা বলেন, আপনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন ভারতকে অনেক দিয়েছেন। আমরা ভালো করে জানি না। আপনি দয়া করে কি কি ভারতকে দিয়েছেন আপনি জনগনের সামনে প্রকাশ করুন। জনগন আপনাকে অবিশ্বাস করে, আপনি কেবল ভারতকে দিতে পারেন কিন্তু ভারত থেকে আনার ক্ষমতা নাই। আপনি বলেছেন, আপনার নাকি চাওয়ার অভ্যাস কম। বাংলাদেশের মানুষের বাঁচা-মরার যে সমস্যা পানি- এটা চাওয়ার যদি অভ্যাস কম থাকে তাহলে এদেশের জনগন আপনাকে সেভাবে এদেশ থেকে বিতাড়িত করবে, আপনার সরকারকে পতন ঘটাবে।

সংগঠনের সভাপতি আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক এমাজউদ্দিন আহমেদ, বিএনপির সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

#বাংলাটপনিউজ/ আরিফ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here