আজ রাতে শুরু হচ্ছে বিশ্বকাপ ফুটবলের ২১তম আসর

0
79

আজ সেই দিন। মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে স্বাগতিক রাশিয়া-সৌদি আরব ম্যাচ দিয়ে (৯টায়) রাতে শুরু হচ্ছে বিশ্বকাপ ফুটবলের ২১তম আসর। ম্যাচ শুরুর আধা ঘণ্টা আগে হবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। বিশ্বকাপের থিমসংসহ রাশিয়ার ঐতিহ্যের ছোঁয়া থাকবে ৩০ মিনিটের অনুষ্ঠানে।

ফিফা সভাপতি জোসেফ ব্লাটার ও রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের দৃঢ় অবস্থানের কারণে পশ্চিমাদের বিরোধিতা পেরিয়ে পরিচ্ছন্ন ও সফল একটি বিশ্বকাপ আয়োজনের দিকে এগিয়ে গেছে রাশিয়া। আর এখন সফলতার দ্বারপ্রান্তে পুতিনের দেশ। মনে করা হচ্ছে, এবারের বিশ্বকাপ হবে এ যাবৎকালের সফলতম ও সেরা বিশ্বকাপ।

৩২ দল, ৮ গ্রুপ। প্রতি গ্রুপের সেরা দুটি দল খেলবে শেষ ষোলতে। এরপর আট দলের কোয়ার্টার ফাইনাল। দুই সেমিফাইনালের পর ১৫ জুলাই মস্কোর লিনঝিন স্টেডিয়ামে হবে ফাইনাল। ১১টি শহরের ১২টি ভেন্যুতে মোট ম্যাচ ৬৪টি।

বিশ্বকাপ আয়োজনে রাশিয়ার খরচ হচ্ছে ৬৮৩ বিলিয়ন রুবল। ডলারের হিসাবে যা প্রায় ১১ বিলিয়ন ডলার। ১১ বিলিয়ন ডলার খরচ হলেও বিশ্বকাপ উপলক্ষে দেশটির অর্থনীতি দারুণ চাঙ্গা হয়ে উঠবে। প্রায় লাখ তিনেক ফুটবলপ্রেমী এখন রাশিয়ায়। প্রায় আড়াই লাখ লোকের কর্মসংস্থান হয়েছে বিশ্বকাপ আয়োজক হওয়ার কারণে। আয়োজকরা আশা করছেন, বিশ্বকাপ আয়োজন করে অন্তত ১৮-২০ বিলিয়ন ডলার আয় হবে দেশটির।

বিশ্বকাপে চিরকালের ফেভারিট দল হচ্ছে ব্রাজিল। রাশিয়ায় বিশ্বকাপে সাম্বা নাচের দেশটি যেন আরো বেশি ফেভারিট হয়ে উঠছে। তাদের আছে বুলেট প্রুফ রক্ষণভাগ। আর নেইমার জেসুস, কুতিনহোর দিয়ে ফরওয়ার্ড প্রতিপক্ষ দলের জন্য রীতিমত ভীতিকর।

বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রাশিয়াকে নিয়ে অনেক অনেক কথা হচ্ছে। ২০১৪ সালের সেই দলটির সঙ্গে যদিও এখনকার দলটির তুলনা চলে না। কেউ ব্রাজিলের চেয়ে এগিয়েও রাখছেন জোয়াকিম লোর দলটিকে। হ্যাঁ, জার্মানি তো জার্মানিই। সেরা সময়ে না থাকলেও জার্মানির পাওয়ার হাউজ জ্বলে উঠলে ব্রাজিলের মতো হট ফেভারিট দলও উড়ে যেতে পারে যে কোনো পরিস্থিতিতে।

বাছাই পর্বে বাজে ফল, বুড়ো দল। ইত্যাদি যুক্তি দেখিয়ে আর্জেন্টিনাকে ফেভারিটের তালিকা থেকে বাদ দিচ্ছেন অনেকেই। এটা মেসির দলের জন্য প্লাস পয়েন্ট বটে। হট ফেভারিট হওয়ার যে চাপ, সেটা নেই। রাশিয়ায় নির্ভর থেকে খেলতে পারবে আর্জেন্টাইনরা।


২০১০ সালের চ্যাম্পিয়ন স্পেন, ডার্ক হর্স বেলজিয়াম, শক্তিশালী ফ্রান্স, উরুগুয়ে আর রোনালদোর পর্তুগালকে নিয়ে শোরগোল হচ্ছে। কাগজে কলমেও তারা যথেষ্ট শক্তিশালী। বিশ্বকাপ জিতে নেওয়ার সামার্থ আছে এই দলগুলোরও।

এবারে বিশ্বকাপের বেদনার দিক হলো-ইতালি, হল্যান্ড, চিলি, ঘানা, আইভোরিকোস্ট, ক্যামেরুনের মতো শক্তিশালী ও দর্শকনন্দিত দলগুলোর অনুপস্থিত। ইতালি ও হল্যান্ডের না থাকাটা বিশ্বকাপের জৌলুস কিছুটা হলেও কমাবে বলে মনে করছেন ফুটবলপ্রেমীরা। সারা বিশ্বে এ দুটি দলের কোট কোটি সমর্থক রয়েছে।

এবারের বিশ্বকাপের সময়সূচি বাংলাদেশসহ এই অঞ্চলের দেশগুলোর ফুটবলপ্রেমীদের জন্য বেশ আদর্শ। দিনের কাজবাজ শেষ করে সন্ধ্যায় বা রাতে টিভি সেটের সামনে বসে পড়তে পারবেন। বিকাল ৪টা, সন্ধ্যা ৬টা, ৭টা, রাত ৮টা, ৯টা, ১০টায় রয়েছে ম্যাচ। তবে দিনের শেষ ম্যাচটি দেখতে হলে রাত জাগতেই হবে। রাত ১২টায় হবে দিনের শেষ ম্যাচটি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here