শিখদের আচার মানে না সানি, তাই ‘কৌর’ নামটি ব্যবহারের অনুমতি নেই !

0
69

মুক্তির আগেই আপত্তি উঠেছে বায়োপিকের নাম নিয়ে। সম্প্রতি শ্রীমণি গুরুদ্বার প্রাবন্ধিক কমিটি সানি লিওনের এই বায়োপিক ওয়েব সিরিজের নাম নিয়ে আপত্তি তুলেছে। তাদের মতে, ‘কৌর’ শব্দটি নাম থেকে হটাতে হবে।

সংস্থার মুখপাত্র দিলজিৎ সিং বেদি জানিয়েছেন, কৌর খুব সম্মানজনক নাম। শিখ গুরুরা শিখ মহিলাদের এই নাম দেন। একজন মহিলা, যে শিখদের কোনও আচার মানে না, তার ‘কৌর’ নামটি ব্যবহার করারও অনুমতি নেই। এতে শিখদের ভাবাবেগে আঘাত লাগতে পারে। শিখরা সানিকে এই নাম ব্যবহার করার অনুমতি দেবে না। ‘কৌর’ পদবি ব্যবহার করার জন্য সানি লিওনকে জনসমক্ষে ক্ষমা চাইতে হবে বলেও জানায় সংস্থা।

ইস্ত্রি অকালি দলের প্রেসিডেন্ট বিবি জাগির কৌরও শ্রীমণি গুরুদ্বার প্রাবন্ধিক কমিটির সঙ্গে একমত। তাঁর মতে, সানি নাকি নিজের বায়োপিকের সাফল্যের জন্য ‘কৌর’ পদবি ব্যবহার করেছেন। সানি জানেন না যে তাঁর এই ‘কৌর’ ব্যবহার শিখদের ভাবাবেগে আঘাত করবে।

সময় মানুষকে অনেক কিছু করতে বাধ্য করে। এই সময়েরই শিকার করেনজিত। তাঁর বায়োপিক, ‘করেনজিত কৌর: দ্য আনটোল্ড স্টোরি অফ সানি লিওন’-এ সেই গল্পই দেখা যাবে। যখন ছোট ছিলেন, তখন অনেক বিদ্রুপ শুনতে হয়েছিল তাঁকে। সেই বিদ্রুপ ও দারিদ্র্য তাঁকে নীলছবির জগতে টেনে আনে। পর্নস্টারের তালিকায় নাম লেখান সানি।

ইরোটিক ইন্ডাস্ট্রি থেকে তাঁকে যখন তুলে এনেছিল ভাট ক্যাম্প, তখন তাঁর পরিচয় পর্নস্টারই। যতই নিজেকে মডেল হিসেবে তুলে ধরুন না কেন, পর্ন ইন্ডাস্ট্রির এক নম্বর নায়িকাকে চেনা তকমা দিয়ে দিতে কসুর করেনি অনেকেই। সেখান থেকে অভিনেত্রী হয়ে উঠতে সানিকে যত না অভিনয়ে কসরত করতে হয়েছে, তার থেকে বেশি পেরোতে হয়েছে সামাজিক ও মানসিক বাধা।

সানির এই জার্নি করেনজিতকে বাদ দিয়ে কখনওই সম্ভব নয়। তাই সত্য ও বাস্তবের খাতিরেই ছবিতে এসেছে করেনজিত কৌরের কথা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here