নারায়ণগঞ্জ বন্দরে নৈশ প্রহরী হত্যা ও ডাকাতি মামলা ডিবিতে হস্তান্তর

0
80

নারায়ণগঞ্জ বন্দর প্রতিনিধি: নারায়ণগঞ্জ বন্দরের ধামগড় ইউনিয়নের তালতলা থেকে লক্ষণখোলা মাদ্রাসা স্ট্যান্ডপর্যন্ত এলাকা অপরাধীদের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে। এখানে প্রায়ই ডাকাতি ও ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। সূর্য ডোবার সঙ্গে সঙ্গে তালতলা নামক স্থানে জড়ো হয় দুর্বৃত্তরা। ঢাকা-মদনগঞ্জ মহাসড়কের এ স্থানে আলোর কোন ব্যবস্থা নেই । যার কারনে সন্ধ্যা নামার পর উক্ত স্থানটি অন্ধকারে ছেয়ে যায় । লোক চলাচল কমে যায়। রাতে স্থানটি আরও ভয়ংকর হয়ে উঠে। অন্ধকারে নির্জন এ স্থানে পথচারির উপর হামলে পড়ে দূর্বৃত্তরা। কেড়ে নেয় সর্বস্ব ।

অপরাধ প্রবণ এ স্থানে পুলিশের টহল নেই বলে এলাকাবাসী জানান। বন্দরে চাঞ্চল্যকর দুই নৈশ প্রহরী হত্যা এবং ডাকাতি মামলার দুই দিন অতিবাহিত হলেও উলে¬খযোগ্য তেমন কোন অগ্রগতি নেই। এ অবস্থায় চাঞ্চল্যকর মামলাটি ডিবিতে হস্তান্তর করা হয়েছে। বন্দর থানার ওসি(তদন্ত) হারুন অর রশিদ মামলা হস্তান্তরের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এ দিকে শনিবার রাতে বন্দরের বিভিন্ন এলাকা থেকে তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ।

আটককৃতরা হচ্ছে, বন্দরের দক্ষিণ লক্ষণখোলা এলাকার মৃত সেলিম সাউদের ছেলে অপু সাউদ(২৫), বন্দরের বঙ্গশাসন এলাকার মৃত আহাম্মদ আলীর ছেলে জাহের মিয়া(২৯) ও বন্দরের সোনাচোরা এলাকার মৃত আক্তার হোসেনের ছেলে আলতাফ(২৮)। আটককৃত ৩ জনের মধ্যে আলতাফ (২৮) ও অপু সাউদ (২৬) ডিবি কার্যালয়ে রয়েছে। এবং অপর আটককৃত জাহের বন্দর থানা হেফাজতে রয়েছে।

উলে¬খ্য ,নারায়ণগঞ্জের বন্দরের লক্ষণখোলা মাদ্রাসা মার্কেটে শনিবার ভোর রাতে রায়হান উদ্দিন (৬৫) ও আবদুল মোতালেব (৫৫) নামে দুই নৈশ্য প্রহরীকে হত্যা কওে ৩টি ব্যাটারি দোকানে লুটপাট চালায় ডাকাতরা। প্রহরীদের হত্যার পর ডাকাতরা তিনটি দোকান থেকে নগদ টাকা ও মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে দক্ষিণ লক্ষণখোলা এলাকার আমজাদ হোসেনের ছেলে সততা ব্যাটারী মেলার মালিক আমির হোসেন বাদী হয়ে বন্দর থানায় মামলা করেন।