স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হলে বুদ্ধিজীবীদের গুলি করার নির্দেশ দিতাম

0
57

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হলে বুদ্ধিজীবীদের গুলি করে মারার নির্দেশ দিতেন বলে মন্তব্য করেছেন কর্নাটকের ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) বিধায়ক বসনগৌড়া পাটিল ইয়াৎনাল।

বৃহ্স্পতিবার কার্গিল বিজয় দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে যোগ দেন ইয়াৎনাল। তার বিধানসভা এলাকাতেই এই অনুষ্ঠান হয়। সেখানে জনতার উদ্দেশ্যে এই বিতর্কিত এই মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি বলেন, এই সব লোকেরা (বুদ্ধিজীবী) আমাদের দেশে থেকে আমাদের দেওয়া করের টাকায় সকল সুযোগ সুবিধা নেয়। তারপর ভারতীয় সেনার বিরুদ্ধে স্লোগান দেয়। দেশের জন্য এই বুদ্ধিজীবী ও ধর্মনিরপেক্ষতার চেয়ে বিপজ্জনক আর কিছু নেই।

“আমি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হলে এইসব বুদ্ধিজীবীদের গুলি করার নির্দেশ দিতাম।’’

তার এই মন্তব্য ঘিরে তীব্র বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। ইয়াৎনালের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ছড়ানোর অভিযোগে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছে কংগ্রেস এবং জেডিএস।

কর্নাটকে বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও লেখক এম এম কালবুর্গি নিজ বাড়িতে হত্যার শিকার হন। সাংবাদিক গৌরি লঙ্কেশকেও গুলি করে খুন করে দুর্বৃত্তরা। সেই কর্নাটকেই উদারপন্থীদের বিরুদ্ধে উস্কানিমূলক মন্তব্য করলেন এই বিজেপি বিধায়ক। যুক্তিবাদী ও মুক্তমনাদের দেশদ্রোহী বলেও আখ্যা দেন ইয়াৎনাল।

কর্নাটকের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী বি এস ইয়েদুরাপ্পার মিডিয়া উপদেষ্টা আমিন মাট্টু সম্প্রতি বলেন, পরিবারের আর্থিক সমস্যা দূর করতে যুব সম্প্রদায় সেনাবাহিনীতে যোগ দেয়। এদের অনেকে দেশের জন্য প্রাণ দেন। সেই প্রসঙ্গেই এ দিন মুক্তমনাদের বিরুদ্ধে বিজেপি বিধায়কের এই মন্তব্য।

ইয়াৎনালের শাস্তির দাবিতে সরব কর্নাটক প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতি দীনেশ গুন্ডু রাও বলেন, দেশে অস্থিরতা ও বিভেদ তৈরি করতে গোটা দেশেই এই ধরনের মন্তব্য করছেন বিজেপি নেতারা। বিধায়কের মন্তব্য থেকেই পরিষ্কার, নিজেদের গোঁড়া মতবাদ প্রতিষ্ঠা করতে খুন করতেও তারা দ্বিধা করেন না।”

কর্নাটকে ক্ষমতাসীন জোটের আরেক শরিক জেডিএস-ও বিধায়কের শাস্তির দাবি করেছে।

বিজেপির প্রবীণ এই নেতা লিঙ্গায়েত সম্প্রদায়ের নেতা। কর্নাটকের বিজেপি সভাপতি তথা সে রাজ্যের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী বি এস ইয়াদুরাপ্পার ঘনিষ্ঠ তিনি।

বাজপেয়ী সরকারে আমলে বস্ত্র ও রেল প্রতিমন্ত্রী ছিলেন ইয়াৎনাল। বিতর্কিত ও উস্কানিমূলক মন্তব্য করে এর আগেও বিতর্কের সৃষ্টি করেছেন তিনি।

কয়েক মাস আগেও স্থানীয় পুর আধিকারিক ও জনপ্রতিনিধিদের উদ্দেশে তিনি বলেন, “মুসলিমদের কোনও সাহায্য করবেন না।”

এত বিতর্কের পরও কিন্তু ইয়াৎনাল নিয়ে বরাবরই নীরব তার দল। মাস খানেক আগের ওই মন্তব্য প্রসঙ্গেও ইয়েদুরাপ্পা বা অন্য কেউ মুখ খোলেননি। এবারও বিজেপির পক্ষ থেকে কোনও প্রতিক্রিয়া বা ব্যবস্থা নেওয়ার কোনও ইঙ্গিত মেলেনি।

কংগ্রেস-জেডিএস জোটের দাবি, নীরব থেকে আসলে এই ধরনের উস্কানিমূলক ও বিদ্বেষপূর্ণ মন্তব্যকে সমর্থনই করছে বিজেপি।

#বাংলাটপনিউজ/আরিফ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here