কালীগঞ্জ বিদুৎ অফিসের লাইনম্যানের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ

0
37

শাহিনুর ইসলাম প্রান্ত,লালমনিরহাট প্রতিনিধি: লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ বিদুৎ অফিসের লাইনম্যান রাজ্জাক ও রুবেলের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সরেজমিনে জানা যায়, ২৩ জুলাই তাদের কর্মস্থল কালীগঞ্জ ছেড়ে হাতীবান্ধার ভেলাগুড়ী এলাকায় প্রবেশ করে। সেচ পাম্পের একটি মিটার দেখে কৃষকের কাছে ধমক দিতে শুরু করে বিদ্যুৎ অফিসের লাইনম্যান রাজ্জাক ও রুবেল।  এক পর্যায়ে কৃষকের কাছে ৫ হাজার টাকা চাঁদা চায় বলে ওই কৃষক জানায়।  শুধু ওই কৃষক নন ওই এলাকার সেচ পাম্পের সকল গ্রহকের কাছে মোট অংকের টাকা চাঁদাবাজি করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে।  মিটার খারাপের কথা বলেও অনেক মানুষের কাছে চাঁদা নিয়ে এসে মিটার পরিবর্তন করতে বলে লাইনম্যান রুবেল ও রাজ্জাক।

হাতীবান্ধার ভেলাগুড়ির সেচ পাম্পের মালিক ফজলুল হক জানান, আমি কৃষক মানুষ।  জমি চাষ করার জন্য পানি দরকার তাই সেচ পাম্পের মাধ্যমে জমিতে পানি দেই।  এর মধ্যে কালীগঞ্জ বিদুৎ অফিসের দুই লাইনম্যান এসে আমাদের এলাকার কয়কজনের কাছে ধমক দিয়ে টাকা নিয়ে গেছে।  এসব কি কারো দেখার নেই?

এ বিষয় শহিদুল মাষ্টার জানান,তাদের এলাকা কালীগঞ্জ উপজেলা বিদ্যুৎ অফিসের লাইনম্যান তারা হাতীবান্ধায় এসে কিভাবে ভয় দেখিয়ে চাঁদা নিয়ে যায়।  আর কেনই বা তারা এ এলাকায় আসে এটাও ভাবার বিষয়।  সীমান্তে ঘোরা ফেরা মাদক সেবীরা করে তারা কি তবে মাদকের সাথে যুক্ত।

এ বিষয়ে লাইনম্যান রাজ্জাক ও রুবেলের নিকট জানতে চাইলে তারা বলেন, ভাই আপনারা আমাদের দুজনের পিছনে লাগলেন কেন? আমরা দুজন সেদিন গুরুত্বপূর্ণ কাজে জাওরানী বাজারে গিয়াছিলাম তাতে আপনাদের সমস্যা কোথায়।

এ বিষয় কালীগঞ্জ বিদ্যুৎ অফিসের নির্বাহী প্রকৌশলী জানান, রাজ্জাক ও রুবেল ভেলাগুড়ি থেকে টাকা নিয়াছে কিনা তা আমার জানা নেই, সেচ পাম্পের মালিক টাকা দিয়াছে তাই নিয়াছে।  তবে কালীগঞ্জে দায়িত্বরত কোন মিটার  রিডার, টেকশিয়ান, লাইনম্যান, হেলপার কেউ কালীগঞ্জের লাইন ব্যাতিত বাহিরে যেতে পারবে কি না? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন যেতে পারবে না। তবে হাতীবান্ধা ভেলাগুড়ি এলাকায় গিয়ে টাকা নিয়ে থাকলে তাদের দু’জনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

#বাংলাটপনিউজ/আরিফ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here