চাঁপাইনবাবগঞ্জে “জঙ্গিবাদ বিরোধী” চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন

0
115

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ জেলা থেকে জঙ্গীবাদ নির্মূলের লক্ষে শিক্ষার্থীদের মাঝে সচেতন সৃষ্টি করতে চাঁপাইনবাবগঞ্জের ৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে “জঙ্গিবাদ বিরোধী” চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন করা হয়েছে। জেলা প্রশাসন ও জেলা শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে মঙ্গলবার সকালে নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের অডিটোরিয়ামে চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক ও জেলা শিল্পকলা একাডেমির সভাপতি এ.জেড.এম নূরুল হক।

বিশেষ অতিথি ছিলেন পুলিশ সুপার টি.এম মোজাহিদুল ইসলাম বিপিএম, নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. দাউদ হোসেন, কলেজের উপাধ্যক্ষ শংকর কুমার কুন্ডু, সহকারী পুলিশ সুপার (শিক্ষানবিশ) মো. শাকিব হোসেন। সভাপতিত্ব করেন কলেজের বাংলা বিভাগের প্রধান ও জেলা শিল্পকলা একাডেমীর আহবায়ক কমিটির সদস্য ড. প্রফেসর মাযহারুল ইসলাম তরু। স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা কালচারাল অফিসার মো. ফারুকুর রহমান ফয়সাল।

এসময় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও কলেজের সহ¯্রাধিক শিক্ষার্থীরা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ‘ঘরে ফেরা’সহ বিভিন্ন ”লচ্চিত্র প্রদর্শন করা হয়। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক বলেন, জঙ্গী মুক্ত দেশ গড়ার জন্য সরকার কাজ করে যাচ্ছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় জঙ্গীবাদের বিভিন্ন ঘটনা ঘটেছে। তাই চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা থেকে জঙ্গীবাদ, সন্ত্রাস নির্মূলে শিক্ষার্থীদের কাজ করতে হবে, সচেতন হতে হবে।

তিনি শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি অন্য শ্রেণী-পেশার মানুষকে জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাস নির্মুলে এগিয়ে আসার আহবান জানান। অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি পুলিশ সুপার বলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় জঙ্গীরা আস্তানা তৈরীর পরিকল্পনা ও এই জেলা থেকেই তাদের জঙ্গী হামলা চালানোর চেষ্টা করছিলো। কিন্তু পুলিশ প্রশাসন তাদের সেই পরিকল্পনা কাজে লাগাতে দেয়নি। তাদের জঙ্গী হামলা প্রতিহত করেছে। তিনি কানসাট ত্রিমোহনী এলাকার জঙ্গী আবু ও তার স্ত্রী প্রসঙ্গে বলেন, জঙ্গী আবু মারা গেলেও তার স্ত্রী বর্তমান জামিনে জেলখানার বাইরে আছে। আবুর স্ত্রী অবশ্যই আবারও জঙ্গীদের সহায়তা বা কাজে লিপ্ত হহে পারে। পুলিশ বিষয়টি নজরে রেখেছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সরকারী কলেজের ভেতরে মাদকসেবীদের আড্ডা এবং মাদক সেবন এর বিষয় উল্লেখ করে বলেন, কলেজে কোন শিক্ষার্থী ধর্মের নামে দাওয়াত দিলে তার গতিবিধি লক্ষ্য করে পুলিশকে তথ্য দেবেন, কোন মাদকসেবী কলেজে প্রবেশ করলে বা মাদক সেবন করলে সেই শিক্ষার্থী বা লোককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করবে এই কলেজের শিক্ষার্থীরা বলে আশা করছি। শিক্ষার্থীদের সচেতন হতে হবে। শিক্ষার্থী ও জেলার মানুষরা জঙ্গীবাদ নির্মূলে এক হয়ে কাজ করলেই জেলা থেকে জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাস এবং মাদক নির্মূল করা সম্ভব হবে। অন্যান্য বক্তারাও জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাস নির্মূলে সকলকে এগিয়ে আসার আহবান জানান।

উল্লেখ্য, আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর নামোশংকরবাটী ডিগ্রি কলেজ, ১৫ সেপ্টেম্বর নবাবগঞ্জ আলিয়া (কামিল) মাদ্রাসা, ১৬ সেপ্টেম্বর নবাবগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজ ও ১৭ সেপ্টেম্বর হিরমোহন সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে “জঙ্গিবাদ বিরোধী” চলচ্চিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হবে।