স্ত্রীকে হত্যার পর মরদেহে আগুন দেন যুবলীগ নেতা

0
38

ঢাকা জেলা পরিষদ সদস্য ও সাভার থানা যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি সেলিম মন্ডল তার দ্বিতীয় স্ত্রী আয়েশা আক্তার বকুলকে হত্যার কথা স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। মানিকগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়ার ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক নিভানা খায়ের জেসির কাছে বুধবার সেলিম মন্ডল এই জবানবন্দি দেন।

বিকেলে পুলিশ সুপার রিফাত রহমান শামীম নিজ কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান। পুলিশ সুপার জানান, পারিবারিক কলহের জের ধরে গত ২ আগস্ট স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার কথাও স্বীকার করেছেন আসামি সেলিম মন্ডল। মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর সহযোগীদের নিয়ে স্ত্রীর মরদেহ গুম করতে চেয়েছিলেন তিনি। এজন্য সাভারের মজিদপুর ভাড়া বাসা থেকে নিজের গাড়িতে করে স্ত্রীর মরদেহ মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার বায়রা ইউনিয়নের স্বরুপপুর নামক স্থানে ফেলে দেন এবং পেট্রল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন। এ সময় তার সঙ্গে আরও বেশ কয়েকজন ছিল।

গত ৩ আগস্ট সিংগাইর উপজেলার বায়রা গ্রাম থেকে আগুনে ৯০ শতাংশ ঝলসানো এক তরুণীর মরদেহ উদ্ধার করে সিংগাইর থানা পুলিশ। পুলিশ অজ্ঞাত পরিচয় হিসেবে মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠায়।

ময়নাতদন্ত শেষে আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলামের মাধ্যমে মরদেহটি মানিকগঞ্জ পৌরসভা কবরস্থানে দাফন করা হয়। সিংগাইর থানা পুলিশ অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।

পরে ছবি দেখে আত্মীয়-স্বজন আয়েশা আক্তার বকুলের মরদেহ শনাক্ত করেন। আয়শার বড় ভাই উজ্জল হোসেন এ ঘটনার সেলিম মন্ডলকে প্রধান আসামি করে সিংগাইর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় প্রধান অভিযুক্ত সেলিম মন্ডল বেশ কিছুদিন পালিয়ে থেকে গত ২৮ আগস্ট উচ্চ আদালতে জামিনের আবেদন করেন। শুনানি শেষে আদালত তাকে অস্থায়ী জামিন দেন।

অস্থায়ী জামিনে থাকা অবস্থায় সেলিম মন্ডল গত ৫ সেপ্টেম্বর রাতে দেশ থেকে পালিয়ে ইতালি যাওয়ার সময় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন পুলিশ তাকে আটক করে। পরে সিংগাইর থানা পুলিশের কাছে সেলিম মন্ডলকে হস্তান্তর করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here