জাজিরায় নিখোঁজের ৪ দিন পর স্কুল শিক্ষিকার গলিত লাশ উদ্ধার

0
80

নিখোঁজ হওয়ার ৪ দিন পর জাজিরার এক স্কুল শিক্ষিকা গলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার বিকেল ৫টায় নিজ বাড়ীর পিছনের বাশেঁর ঝাড়ের মধ্য থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়। এ সংবাদে সহকর্মী, ছাত্র-ছাত্রী ও আত্মীয় স্বজনদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। জাজিরা থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেছে। প্রাথমিক ভাবে মৃত্যু কারন জানা যায়নি। এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত কোন মামলা হয়নি।

জাজিরা থানা ও বড়মুলনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক খান আব্দুর রহিম সূত্রে জানাগেছে, রুবিনা আক্তার রুমা জাজিরা উপজেলার ২০ নং বড়মুলনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা। সে একই উপজেলার মুলনা ইউনিয়েনের মধ্য রায়ের কান্দি গ্রামের মৃত হাসান মুন্সীর মেয়ে। তিনি গত শুক্রবার নিজ বাড়িতে আসরের নামাজ শেষে ব্যাক্তিগত কাজে উপজেলা সদরে যান।

সন্ধ্যা পেরিয়ে গেলেও সে বাড়ি ফিরে না আসায় তার মা মোবাইল ফোনে তার সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করলে মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। এর পর অনেক খোজাখুজি করেও তার কোন সন্ধান পায়নি। গত ২৩ সেপ্টেম্বর রুবিনার ভাই শামসুল হক মুন্সি জাজিরা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করে।

এরপর মঙ্গলবার বিকেলে বাড়ির পেছনের বাঁশের ঝাড়ের মধ্যে থেকে লাশের গন্ধ ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় লোকজন জাজিরা থানা পুলিশকে খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে গলিত লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে প্রেরণ করে। তার মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে আত্মীয়-স্বজন ও পুলিশ এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কিছু জানতে পারেনি।

নিহতের ভগ্নিপতি কামাল মাদবর বলেন, রুবিনা আর আমার স্ত্রী বাপের বাড়ীতে থাকেন। রুবিনার এক মাত্র ভাই শামসুল হক মুন্সি ঢাকায় থাকেন। অপর ৪ বোন তাদের শশুর বাড়ীতে থাকেন। গত শুক্রবার আমার শাশুরির কাছে জাজিরা উপজেলা শহরে যাওয়ার কথা বলে বাড়ী থেকে বের হয় ।

এরপর তার কোন খোজ পাওয়া যায়নি। আমরা মৃত্যুর বিষয়ে এখন পর্যন্ত কিছুই জানতে পারি নাই। স্কুলের প্রধান শিক্ষক খান আব্দুর রহিম বলেন, রুবিনা ব্যাক্তিগত ভাবে ধার্মিক ও খুবই ভালো চরিত্রের অধিকারী ছিলেন। তিনি ২০১০ সাল থেকে নিষ্ঠার সাথেবিদ্যালয়ের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। তার এ অনাকাঙ্খিত মৃত্যুতে আমরা শোকাহত।

জাজিরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: বেলায়েত হোসেন বলেন, খবর পেয়ে জাজিরা থানা পুলিশ বাঁশ ঝাড়ের মধ্যে দাঁড়ানো অবস্থায় অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে। লাশের গায়ে পোকা ধরায় তাৎক্ষনিক ভাবে পুলিশ মৃত্যুর কারণ উদঘাটন করা সম্ভব হয়নি। ময়না তদন্তের প্রতিবেদন পাওয়া গেলে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় এখনো কোন মামলা হয়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here