ব্যারিষ্টার এম. আশরাফুল ইসলাম `ইজ দি ফ্যাক্টর অফ ‘টাংগাইল-৬’ আওয়ামীলীগ পলিট্রিক্স’

0
243

স্বাধীনতার ৪৫ বছরেও মেরুদন্ড সোজা করে দাড়াঁতে পারেনি টাংগাইল জেলাধীন দেলদুয়ার উপজেলাবাসী। স্রোতের শ্যাওলা হয়ে এ-ঘাট থেকে ও-ঘাটে ভেসেঁ নিজেদের জীবন ক্ষয় করেছে- হারিয়েছে সামাজিক ও রাজনৈতিক অধিকারের সব টুকু্-ই। স্বাধীনতাত্তর দীর্ঘ সময়ে তাদের এই অ-সচেতনতায় বাস্ত-ভিটায় ‘হুতুম পাখি’রা বাসা বাধঁলেও; তারা সব সময় অধিকার বঞ্চিত থেকে গেছে ।

উপজেলাবাসীর এই র্দীঘ বঞ্চনার ধারাবাহিকতা অকেটাই ‘কালের কলংক’। তাদের এই কলংক মোঁচনে ‘কালার প্রেম সার সিদ্ধ’। তাই, দেলদুয়ার উপজেলাবাসী এই র্দীঘ অনিশ্চিতার বেঁড়িবাঁধ ভিঙ্গিতে সচেতন। সবচেয়ে বড় কথ্ হলো, আধুনিক যুগে জীবন-মানের পরির্বতন, পরিবর্ধন ও সংস্করণ এই উপজেলাবাসীকে ভাবিয়ে তুলেছে। তাদের এই ভাবনার ডাকে একাত্ব ঘোষনা করেছেন অত্র উপজেলার কৃতি সন্তান জনাব ব্যারিষ্টার এম. আশরাফুল ইসলাম।

জানা গেছে, আজ থেকে প্রায় ২০ বছর আগে থেকেই নাগরপুর-দেলদুয়ার বাসীদের নিয়ে ব্যারিষ্টার এম. আশরাফুল ইসলামের ‘মানব মুক্তির পথে’ পথ চলা শুরু। দেলদুয়ার উপজেলার লাউহাটি গ্রামে ব্যারিষ্টার এম. আশরাফুল ইসলামের জন্ম হলেও তিনি লেখা-পড়া করেছেন যুক্তরাজ্যে।

নিয়েছেন আইন বিষয়ে সর্বচ্চ ডিগ্রী। সেখানে অবস্থানরত অবস্থায় দূদান্ত-বলিষ্টতা নিয়ে আওয়ামীলীগের রাজনীতি করেছেন। পড়া-লেখা শেষে মাটির টানে জনসেবাকে আদর্শ করে ফিরে এসেছেন `বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায়’। বতমানে তিনি আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের প্রভাবশালী নেতা হিসাবে দেশ ও মানুষের সেবায় সুপ্রিম কোর্টে আইন ব্যবসায় নিয়োজিত রয়েছেন।


সুদর্শণ, উচ্চ শিক্ষিত, ও সৎজন, ব্যারিষ্টার এম. আশরাফুল ইসলাম নাগরপুর-দেলদুয়ারের উন্নয়নে চুষে বেড়াচ্ছেন প্রত্যন্ত অঞ্চলে প্রতিটি অবহেলিত জনপথ। তরুল-যু্কদের নিয়ে গড়ে তুলেছেন ‘জয় বাংলা স্লোগানের এক বিশাল কর্মী বাহিনী’। এই কর্মী বাহিনী ব্যারিষ্টার এম. আশরাফুল ইসলামের নেতৃত্বে অত্র এলাকার অবহেলিত-অসহায় মানুষদের পাশে দাড়িয়ে আগামীর সুন্দর স্বপ্ন দেখাচ্ছে।

এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ব্যারিষ্টার এম. আশরাফুল ইসলাম উপজেলাবাসীর মনে দারুন সাড়া ফেলেছেন।শুধু দেলদুয়ার নয় টাংগাইল-৬ আসনের বঞ্চিত সর্ব সাধারন ব্যারিষ্টার এম. আশরাফুল ইসলামের হাত ধরে সামাজিক ও রাজনৈতিক মুক্তির পথ দেখছেন।

এ ব্যাপারে, ব্যারিষ্টার এম আশরাফুল ইসলাম বলেন, আমি গ্রামের ছেলে। গ্রামের মানুষ-জনের সূখ দুঃখের ধারা আমার হৃদয়ে বহমান। ভাগ্য উন্নয়নের ঐশ্বরিকতায় আমি আজ ব্যারিষ্টার। আমি নাগরপুর-দেলদুয়ারের উন্নয়নে কাজ করতে চাই। জননেত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে (টাংগাইল-৬) এলাকার ব্যাপক উন্নয়নে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এমপি পদে প্রার্থী।

নেত্রী, আমাকে মনোনয়ন দিলে আমি নাগরপুর-দেলদুয়ারবাসীদের নিয়ে নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত করবো।প্রভাবশালী ও হঠকারীদের হাত থেকে টাংগাইল-৬ আসনের সর্ব স্তরেরজনসাধরনকে মুক্তি দিব ইন্-শাল্লাহ।


তিনি আরো বলেন, আমি টাংগাইল-৬ আসনের সর্বস্তরের জনসাধারনকে আমার সালাম জানাই। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে দেশ গঠনে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে আরো একবার নৌকা মার্কায় ভোট চাই।

তিনি আরো বলেন, আমার দেলদুয়ার উপজেলাবাসী স্বাধীনতাত্তরপর্ব থেকেই নেতা ও নেতৃত্বহারা। এ কথা সত্য যে, টাগাইল-৬ আসনের মোট জনসংখ্যার সিংহভাগই নদী ভাঙ্গন কবলিত অসহায় দেলদুয়ারবাসী হওয়া সত্ত্বেও আজ অব্দি তারা তাদের নিজেদের মধ্য থেকে নেতা নির্বাচন করার সুযোগ পান নাই। আমি তাদেকে এই এহেন অবস্থা থেকে মুক্তি দিতে চাই। আমি নাগরপুর- দেলদুয়ার (টাংগাইল-৬) আসনের সর্ব সাধারনদের নিয়ে গড়ে তুলতে চাই ‘বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা।

পরিসংখ্যান, জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের রাজনীতিতে টাংগাইল-৬ আসন হতে ব্যারিষ্টার এম. আশরাফুল ইসলাম হতে পারেন জন-নন্দিত নেতা এই আশাবাদ নাগরপুর- দেলদুয়ার উপজেলার রাজনৈতিক সচেতন মহলের।

# মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম/ বাংলাটপনিউজ২৪.কম #

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here