শরীয়তপুরে শিক্ষানবীশ আইনজীবী কুতুব উদ্দিনকে নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন

0
81

॥ ইয়াকুব বেপারী ॥
শরীয়তপুর আইনজীবী সমিতির শিক্ষানবীশ আইনজী কুতুব উদ্দিন সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছে। প্রতিবাদে ২৫ অক্টোবর সকালে জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আবু সাঈদ এর নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। আইনজীবী ও শিক্ষানবীশ আইনজীবীরা জেলা আইনজীবী সমিতির সামন থেকে বিক্ষোভ মিলিছ নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে জেলা জজ আদালতের সামনে মানববন্ধন ও সমাবেশ করে। মানববন্ধনের আয়োজন করে শিক্ষানবীশ আইনজীবী ও জেড এইচ সিকদার ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স টেকনোলজির শিক্ষার্থীরা।

এ ঘটনায় সদর উপজেলার ধানুকা গ্রামের মৃত আ.রশিদ খানের ছেলে রিন্টু খানের বিরুদ্ধে শরীয়তপুর চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বুধবার মামলা করেছে কুতুব উদ্দিনের বড়ভাই এডভোকেট মহিউদ্দিন মোল্যা শাহিন। অভিযুক্ত রিন্টু খানের বিরুদ্ধে আদালত গ্রেফতারী পরোয়ানা ইস্যু করেছে। ঘটনার পর থেকে রিন্টু খান পলাতক রয়েছে।

মামলার বিবরণ থেকে জানাযায়, গত ২৩ অক্টোবর মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টার সময় সদর উপজেলার তুলাসার গ্রামের মাওলানা দলিল উদ্দিন মোল্যার ছেলে ও শরীয়তপুর আইনজীবী সমিতির শিক্ষানবীশ আইনজীবী কুতুব উদ্দিন রিন্টু খানের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান মেসার্স আর কে ট্রেডার্স থেকে পটেটো চিপস কিনে। তৈরী ও মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখ যাচাই করে কুতুব উদ্দিন দেখতে পায় চিপসের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গেছে।

তখন চিপস ফেরত নিতে দোকানীকে অনুরোধ করে কুতুব। দোকানী চিপস ফেরত না নিয়ে কুতুব উদ্দিনকে বেদরক মারধর করে। এতে কুতুব উদ্দিনের চোখেও আঘাত লাগে। কুতুব উদ্দিনকে প্রথমে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। অবস্থার কোন উন্নতি না দেখে কর্তব্যরত চিকিৎসক কুতুব উদ্দিনের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরনের সিদ্ধান্ত গ্রহন করেছেন।

মানববন্ধন থেকে জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদ বলেন, একটা ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে আর একটা ঘটনা ঘটে থাকে। শিক্ষানবীশ আইনজীবী কুতুব উদ্দিন অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে গিয়ে সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছে। কুতুব উদ্দিন কোন অন্যায় করে থাকলে কর্তৃপক্ষকে অবগত করতে পারত। হামলাকারী অত্যন্ত সাহসী ও জুলুমবাজ। হামলাকারীর মনেরাখা উচিৎ ছিল শিক্ষানবীশ আইনজীবীরা বিচ্ছিন্ন কেউ না। হামলাকারীর বিচার আইনের মাধ্যমেই হবে।

তিনি শিক্ষানবীশ আইনজীবীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আমিও শিক্ষানবীশ আইনজীবী হিসেবে এসেছিলাম। ৩০ বছরে এ পর্যায়ে পৌঁছেছি। আপনারা সঠিক পোশাকে আদালতে আসবেন। সিনিয়রদের সম্মান করবেন। আমরা অন্যায়ের প্রতিবাদ করব। অন্যায়ের কাছে মাথানত করব না।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন এডভোকেট সিরাজুল ইসলাম আকন, এডভোকেট মোছলেম খান, এডভোকেট ফেরদৌস মিয়া, এডভোকেট মীর শাহাবুদ্দিন উজ্জল, এডভোকেট আব্দুল আউয়াল, এডভোকেট আজিজুর রহমান রোকন, এডভোকেট রুহুল আমিন প্রমূখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here