কোচিং না করিয়েও মেধাবীদের নিয়ে ‘ইউসিসি’র আকাশচুম্বী প্রচারণা!

0
55

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষার জন্য অসংখ্য কোচিং গড়ে উঠেছে রাজধানীর অলিগলিতে। আর তাদের কোনো শিক্ষার্থী যদি মেধাতালিকায় থাকা প্রথম দশজনের মধ্যে একজন হয় তাহলে তো কথাই নেই! মেধা তালিকায় থাকা সেই শিক্ষার্থীকে নিয়ে প্রচার প্রচারণা চলে আকাশচুম্বী।

এবার এমন একটি প্রচারণা চালাতে গিয়ে ধরা খেলো ইউসিসি নামক কোচিং সেন্টার। যারা কিনা চারুকলার কোচিং না করানোর পরও নিজেদের ছাত্র দাবি করে দেদারছে প্রচার চালাচ্ছে। অন্যদিকে, এর প্রতিবাদ জানিয়েছেন সেই ছাত্র।

জানা যায়, জানা যায়, এ বছর চারুকলায় ১৭২.৭৫ মেধা স্কোর নিয়ে প্রথম স্থান লাভ করেন পাবনা গভর্নমেন্ট এডওয়ার্ড কলেজের ছাত্র রাকিন নাওয়ার। এরপরই রাকিনকে নিয়ে মিথ্যা বিজ্ঞাপনে মাতে ইউসিসি। ইউসিসির ফেসবুক পেজে ১০ অক্টোবর লেখা হয়, ‘এ বছর ঢাবি ‘চ’ ইউনিটে ১ম মেধাস্থান অর্জন করেছেন ucc এর ফার্মগেট শাখার কৃতী ছাত্র মো. রাকিন নাওয়ার। প্রাক্তন কলেজ: গভর্নমেন্ট এডওয়ার্ড কলেজ, পাবনা। রাকিন নাওয়ারকে ucc এর পক্ষ থেকে উষ্ণ অভিনন্দন।’

এই পোস্টটি রাকিনের নজরে এলে ক্ষুব্ধ হয়ে নিজের ফেসবুক আইডিতে তিনি লেখেন, আমার ঢাবি ‘চ’ ইউনিটে প্রথম হওয়ার পিছনে ইউসিসি কোচিং এর কোনো অবদান নেই, আমার বাসা থেকে সেখানে ভর্তি করা হলেও সেখানে আমি ২-৩ দিনের বেশি ক্লাস করিনি। আমি চারুকলার জন্য আলাদাভাবে কোচিং করেছি নিয়মিত। আমার এই সাফল্যের জন্য সবটুকু অবদান আমার মা, বাবা, ও ষড়ঙ্গ পরিবার এর চারুকলার ২৩ ব্যাচের ভাই ও আপুদের। যারা এই কর্মশালা পরিচালনা করেছেন। ইউসিসি চারুকলা ভর্তি বিষয়ক কোনো কোচিং করায় বলে আমার জানা নেই।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রাকিন নাওয়ার বলেন, আমি সেখানে ‘ঘ’ ইউনিটে ভর্তি হয়েছিলাম। কিন্তু সেখানে নিয়মিত ছিলাম না। ইচ্ছা ছিল চারুকলায় পড়বো। ইউসিসি উল্লেখ করেনি এই ছাত্র ‘ঘ’ ইউনিটে ভর্তি হয়েছে কিন্তু চারুকলায় ফার্স্ট হয়েছে। কিন্তু তারা সেসব উল্লেখ না করে ‘চ’ ইউনিটে প্রথম হয়েছে লিখেছে। তারা তো ‘চ’ ইউনিটে কোনো কোচিং করায় না। তারা আমাকে কোনো ড্রইয়িং শেখায়নি। এখন সবাই মনে করবে ইউসিসিতে কোচিং করে চারুকলায় চান্স হয়েছে আমার। পরবর্তীতে অনেকে ভর্তি হতে আসবে।

নাকিন নাওয়ার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলার ২৩তম ব্যাচের শিক্ষার্থীদের পরিচালিত ষড়ঙ্গ পরিবারের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

এখানকার প্রশিক্ষক সৈকত চৌধুরী বলেন, আমাদের টিমের প্রশিক্ষণের ফলে প্রথম স্থান করায় অন্য রকম ভালোলাগা কাজ করছে। আমরা তার সাফল্য কামনা করছি।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে ইউসিসি কোচিং সেন্টারের পরিচালক কামাল উদ্দীন পাটোয়ারী বলেন, সে আমাদের এখানে ভর্তি হয়েছিল এজন্য আমরা ফেসবুকে দিয়েছি। তবে তাকে কোনো ধরনের গিফট দেইনি। এটা দোষের কিছু নয়।

উল্লেখ্য, কয়েখদিন আগেই ঢাবি ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফল বাতিল ও ফের পরীক্ষা নেওয়ার ঘোষণার পর উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের দেওয়া উপহার ফেরত চেয়েছিলো ইউসিসি। এ নিয়ে সামাজিক যোগযোগমাধ্যমে চলছে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা।