আ.লীগের প্রার্থী চূড়ান্ত, বাদ পড়ছেন বেশ কিছু এমপি

0
65

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে ক্ষমতাশীন আওয়ামী লীগের তিনশ’ আসনের প্রার্থী তালিকা প্রায় চূড়ান্ত। দলীয় সংসদীয় বোর্ড বসে এ তালিকা চূড়ান্ত করে এনেছে। প্রতিটি বিভাগের আসন অনুযায়ী প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করে এখন শেষ পর্যায়ের যাচাই-বাছাই চলছে। বিভিন্ন মহলের তদবির আর দলীয় নানা ইস্যুতে কোন কোন সাংসদ বাদ পড়ছেন আবার কেউ অন্তর্ভুক্ত হচ্ছেন প্রার্থী তালিকায়। এছাড়া প্রার্থীরাও নানামহল থেকে সর্বোচ্চ চেষ্টা তদবির চালাচ্ছেন দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়ে।

জানা গেছে, খুলনা বিভাগের মনোনয়নে এবার আওয়ামী লীগের বেশ চমক থাকছে। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের কয়েকটি জেলা থেকে এবারের এমপিরাও বাদ পড়েছেন। যশোরে মনোনয়ন দৌড়ে এক সেনা কর্মকর্তা পিছনে ফেলেছেন বর্তমান এক এমপিকে। ঝিনাইদহে প্রশাসনিক রিপোর্টে বাদ পড়েছেন এক এমপি। তার স্থলে আবারও দলীয় মনোনয়ন পেতে যাচ্ছেন সাবেক এক সাংসদ।

বরিশাল বিভাগের প্রার্থী তালিকায়ও থাকছে চমক। ভোলা, বরগুনা, বরিশাল জেলার এমপিরা তাদের দলীয় মনোনয়ন টিকিয়ে রাখতে পারলেও পটুয়াখালীর এক জনপ্রিয় সাংসদ বাদ পড়েছেন একটি বিশেষ মহলের সুপারিশে। অবশ্য ওই এমপি ২০০৮ সালের নির্বাচনে বাদ পড়েছিলেন সংস্কার ইস্যুতে। পিরোজপুরের একটি আসনের এমপি বাদ পড়েছেন দলীয় বিদ্রোহের কারণে। এবারও নিজ এলাকার বাইরে পাশের এলাকা থেকে মনোনয়ন পাচ্ছেন বরিশালের এক সাদামনের এমপি। বরিশাল বিভাগে ক্ষমতাশীন দলের জোটের জন্য এবার একটি আসন বেশি ছাড়া হতে পারে।

পিরোজপুরের ৩টি আসনের মধ্যে ২টি আসনই ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে মহাজোটের অন্য দলগুলোর জন্য। পিরোজপুর-২ দেওয়া হচ্ছে জাতীয় পাটি (জেপি) আর পিরোজপুর-৩ দেওয়া হচ্ছে এরশাদের জাতীয় পার্টিকে। বরিশাল-৩ আসনে জাতীয় পার্টি ও ওয়ার্কার্স পার্টিকে নিজেদের মধ্যে সমঝোতা করার জন্য বলা হয়েছে। এসকে সিনহার সঙ্গে ঘনিষ্ঠতার জন্য বাদ পড়ছেন সিলেট বিভাগের একজন সংসদ সদস্য। সেখানে আওয়ামী লীগের প্রার্থীতা পেতে যাচ্ছেন সাবেক এক আমলা।

এ ছাড়া রাজধানী ঢাকা মহানগরের তালিকা থেকে বাদ পড়ছেন বিতর্কিত সাবেক এক প্রতিমন্ত্রী। ময়মনসিংহ জেলার একটি আসন গেলবার জাতীয় পার্টিকে ছেড়ে দেওয়া হলেও এবার সে আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চূড়ান্ত করা হয়েছে। এছাড়া মহাজোটের ময়মনসিংহের বাকি আসনগুলো ঠিক রয়েছে। টাঙ্গাইল জেলার দুটি আসনের এমপি প্রার্থী তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন। এর একটিতে প্রার্থীতা পেয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের এক শীর্ষ নেতা। শেরপুরের একটি আসনে প্রার্থী চূড়ান্ত করা হয়েছে বিএনপির ভোটে ভাগ বসাতে। বিএনপির প্রার্থীর আপন চাচাকে মনোনয়ন দিচ্ছে আওয়ামী লীগ। দলের অন্য মনোনয়ন প্রত্যাশীরা এতে হতাশা ব্যক্ত করেছেন।

কিশোরগঞ্জের একটি আসনে প্রার্থী তালিকা থেকে বাদ পড়ছেন এক এমপি। এ আসনে পুলিশের এক শীর্ষ কর্মকর্তার নাম রয়েছে। তবে তা পরিবর্তন করতে দেশের শীর্ষ পর্যায়ে তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।