জাবি শিক্ষার্থীকে ইচ্ছাকৃত ভাবে অকৃতকার্য করার অভিযোগ শিক্ষকের বিরুদ্ধে

0
32

আরিফুল ইসলাম আরিফ, জাবি প্রতিনিধি: সহপাঠির ক্লাস উপস্থিতি দেওয়ার অপরাধে পরীক্ষায় অকৃতকার্য করে দেওয়ার অভিযোগ ওঠেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) গণিত বিভাগের এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত শিক্ষকের নাম অধ্যাপক জেসমীন আখতার। ঘটনার শিকার শিক্ষার্থীর নাম মুক্তা বিশ্বাস। সে ওই বিভাগের স্নাতক (সম্মান) শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী।

গণিত বিভাগের শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, অভিযুক্ত অধ্যাপক জেসমিন আখতার বিভাগের ৪৩তম আবর্তনের শিক্ষার্থীদের ফ্লুইড ম্যাথমেটিক্স নামের ৪০৯ নং কোর্সটি পড়ান। গত বছরের জুন বা জুলাই মাসের দিকে কোন এক দিন ক্লাসে বন্ধুর ক্লাস উপস্থিতি দিয়ে দিয়েছিলেন মুক্তা বিশ্বাস। বিষয়টি অধ্যাপক জেসমীন আখতার ধরে ফেলেন। পরে মুক্তা ও তার সহপাঠীরা বেশ কয়েকবার ওই শিক্ষকের কাছে ক্ষমাও চান।

এ বিষয়ে মুক্তা বিশ্বাস বলেন, “আমি এবং আমার সহপাঠিরা মিলে ওনার কাছে ক্ষমা চাই। কিন্তু তিনি বিষয়টি কর্নপাত করেননি। কোন যৌক্তিক কারণ ছাড়াই উনি আমাকে ক্লাস-পরীক্ষায় অংশগ্রহণের কোন প্রয়োজন নেই বলেও কয়েকবার ক্লাসে জানিয়েছিলেন । কিন্তু আমি নিয়মিত ক্লাস-পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছি। গত ১৪ নভেম্বর ফলাফল প্রকাশ করার পরের দিন আমি আমার টিউটোরিয়াল নম্বর পূনরায় মূল্যায়ন করার জন্য বিভাগের সভাপতির কাছে আবেদন করেছিলাম।”

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গণিত বিভাগের এক শিক্ষার্থী বলেন, “মুক্তার ঘটনার জেরে সকল শিক্ষার্থীদের পূর্ণ উপস্থিতি থাকা সত্ত্বেও উপস্থিতি ১০ নম্বরের মধ্যে ৮ নম্বর করে দিয়েছেন ওই শিক্ষক । তাছাড়া টিউটোরিয়ালেও কম নম্বর দিয়েছেন উনি।”

এ বিষয়ে অধ্যাপক ড. জেসমীন আখতারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘‘এটা একটা অনিচ্ছাকৃত ভূল ছিল। আমি এরই মধ্যে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বরাবর সংশোধনী নম্বরপত্র পাঠিয়ে দিয়েছি।’

এ বিষয়ে বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক মো. শরীফ উদ্দিন বলেন, বিষয়টি দুঃখজনক। আমি জানার পর অধ্যাপক জেসমীন আখতারের সাথে কথা বলেছি। তিনি ফলাফল পুনঃমূল্যয়ন করবেন বলে জানিয়েছেন।