ডাব বিক্রেতা সদানন্দেকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না !

0
40

শরীয়তপুর প্রতিনিধি ঃ শরীয়তপুর জেলা শহরের কোটাপাড়া, প্রেমতলা, বাস স্ট্যান্ড, চৌরঙ্গী মোড়, আদালত প্রাঙ্গন সহ শহরের বিভিন্ন এলাকায় ডাব বিক্রেতা সদানন্দ মন্ডলকে (৫০) গত ২০ নভেম্বর মঙ্গলবার রাত থেকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। সম্ভাব্য স্থানসহ আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতেও খোঁজ নেয়া হয়েছে। এলাকায় মাইকিং করে সদানন্দের সন্ধান চাওয়া হয়েছে। অতপর পালং মডেল থানায় সাধারণ ডাইরী করা হয়েছে। নিখোঁজের ৭ দিন পেরিয়ে গেলেও সদানন্দের কোন সন্ধান মিলছে না। দুশ্চিন্তাগ্রস্ত পরিবার সদানন্দের সন্ধান পেতে প্রশাসন সহ সকলের সহায়তা কামনা করেছে।

সাধারণ ডাইরী ও সদানন্দের পরিবার সূত্রে জানাযায়, সদর উপজেলার পালং উইনিয়নের পূর্ব কোটাপাড়া গ্রামের মৃত মনোহর মন্ডলের ছেলে সদানন্দ মন্ডল। সদানন্দ ভূমিহীন বিধায় চাচা অনীল চন্দ্র মন্ডলের বাড়িতে একটি ছোট্ট ঘর নির্মাণ করে স্ত্রী সুপ্রিয়া ও কন্যা অপ্রীতাকে নিয়ে বসবাস করতো। জীবিকা নির্বাহর জন্য জেলা শহরের বিভিন্ন স্তানে ডাব নারিকেল বিক্রি করত।

গত ২০ নভেম্বর রাত সারে ১০টার দিকে বাড়ি থেকে বের হয়ে সদানন্দ আর ফিরে আসেনাই। পরিবারের লোকজন সহ এলাকাবাসী সম্ভাব্য স্থানে খোঁজাখুজি ও মাইকিং করে কোন সন্ধান না পেয়ে ২১ নভেম্বর পালং মডেল থানায় সাধারণ ডাইরী করেছে। অদ্যবধি সদানন্দের কোন সন্ধান মিলেনি। নিখোঁজ হওয়ার সময় সদানন্দের গায়ে হাফ হাতা শার্ট, কালো জ্যাকেট ও পড়নে লুঙ্গি ছিল। সদানন্দের উচ্চতা ৫ ফুট, গায়ের রং কালো ও মুখমন্ডল লম্বাটে।

সদানন্দের চাচাতো ভাই সুমন মন্ডল বলেন, সদানন্দ একজন ভূমিহীন। আমাদের জায়গায় ঘরতুলে স্ত্রী-মেয়ে নিয়ে বসবাস করছে। ওর কোন শত্রু নাই। ২০ নভেম্বর থেকে সদানন্দকে খুঁজে না পেয়ে থানায় সাধারণ ডাইরী করেছি। আজ ৭দিন পাড় হতে যাচ্ছে ওর কোন সন্ধান পাচ্ছি না। যদি কোন সুহৃদ ব্যক্তি ওর সন্ধান পেয়ে থাকেন তাহলে উপরোক্ত ঠিকানায় বা ০১৭৯৭২০৬৩৭৭ নম্বরে যোগাযোগ করতে অনুরোধ করছি।

সদানন্দের স্ত্রী সুপ্রিয়া বলেন, আমার একমাত্র মেয়ে অপ্রীতা এবছর মজিদ জরিনা ফাউন্ডেশন স্কুল থেকে এসএসসি পরীক্ষা দিবে। এখন আমার মেয়ের টেষ্ট পরীক্ষা চলছে। এমন সময় আমার এ বিপদ। আসার স্বামীকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। আমি এখন কী করবো ভেবে পাচ্ছি না। কেউ আমার স্বামীর সন্ধান পাইলে আমাকে জানাবেন। আমার স্বামীর কোন শত্রু ছিল না। কে এমন সর্বনাশ করলো।

এ বিষয়ে পালং মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মনিরুজ্জামান বলেন, নিখোঁজের পরিবারের পক্ষে একটা সাধারণ ডাইরী করেছে। ভিকটিমকে খোঁজার জন্য পুলিশ কাজ করছে। এখনও কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি।