ব্যালন ডি’অর জয়ী লুকা মদ্রিচ

0
14

১১ বছর পর মেসি-রোনাল্ডোর বাইরে ব্যালন ডি’অর জয়ী লুকা মদ্রিচ। ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো, গ্রিজম্যান এবং কিলিয়ান এমবাপেদের হারিয়ে সেরার শিরোপা তুলে নিলেন ক্রোয়েশিয়ার অধিনায়ক। রোনাল্ডো শেষ করেছেন দ্বিতীয় স্থানে। তৃতীয় স্থানে গ্রিজম্যান। বিশ্বকাপের চমক এমবাপে শেষ করেছেন চতুর্থ স্থানে।

২০০৮ থেকে গত বছর পর্যন্ত হয় মেসি না হয় রোনাল্ডো ব্যালন ডি’অর ট্রফি হাতে তুলেছেন। দু’জনেই পাঁচবার করে। মেসি-রোনাল্ডোদের সেই দাপট শেষ করে এবার তৃতীয় ব্যক্তির হাতে উঠল ফ্রান্স ফুটবলের সেরার খেতাব। বিশ্বকাপ ফাইনালে ক্রোয়েশিয়াকে তোলার পিছনে মদ্রিচের লড়াই গোটা দুনিয়া মনে রেখেছে। তাছাড়া ক্লাবের জার্সতে রিয়াল মাদ্রিদকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জেতানোর পিছনে তাঁর ভূমিকা অনবদ্য। সদ্য ফিফার বর্ষসেরাও হয়েছেন। উয়েফার বর্ষসেরা ফুটবলারের খেতাবও তাঁরই দখলে।

গত মরশুমে ক্লাব এবং দেশ দুই জার্সি গায়ে চাপিয়েই দুর্দান্ত পারফরম্যান্স ছিল লুকার। স্বাভাবিকভাবেই এ হেন সম্মান পেয়ে অভিভূত রিয়াল মাদ্রিদের মিডফিল্ডার। তিনি বলছেন, “একটা অদ্ভুত অনুভূতি হচ্ছে, আমি খুশি, সম্মানিত। এই মুহূর্তে আমার মানসিক অবস্থা বর্ণনা করার মতো শব্দ খুঁজে পাচ্ছি না। তবে, যাঁরা যাঁরা আমাকে সাহায্য করেছেন তাঁদের সবাইকে ধন্যবাদ। আমার রিয়াল মাদ্রিদ এবং ক্রোয়েশিয়ার সতীর্থদের অসংখ্য ধন্যবাদ। ছোটবেলা থেকেই ব্যালন ডি’অর জেতার স্বপ্ন দেখতাম।

আজ সেই সম্মান পেয়ে আমি সত্যিই গর্বিত।” এমবাপে, গ্রিজম্যানরা অবশ্য হতাশ। যদিও, সেই হতাশা তাঁরা প্রকাশ করেননি। এমবাপে বলছেন, ” আমার মনে হয় লুকা যোগ্য সম্মান পেয়েছে। আর তাছাড়া আমি যে পরিবেশ থেকে উঠে এসেছি তাতে ব্যালন ডি’অর পোডিয়ামে উঠতে পেরেই নিজেকে সম্মানিত মনে করছি।”