আমরণ অবস্থান কর্মসূচিতে টাঙ্গাইল-৪ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী লতিফ সিদ্দিকী

0
121

গাড়িবহরে হামলার ঘটনায় প্রতিকার না পেয়ে আমরণ অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন সাবেক মন্ত্রী ও টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী লতিফ সিদ্দিকী। আজ সোমবার সকালে জেলা প্রশাসকের বরাবর লিখিত একটি আবেদনে মাধ্যমে অবহতি করে তিনি আমরণ কর্মসূচির ঘোষণা দেন।

লিখিত আবেদনে তিনি বলেন, আমার অবস্থান ধর্মঘটের ১৮ ঘণ্টা অতিক্রান্ত হয়েছে, কিন্তু কোনো প্রতিকার না পেয়ে আমি আমরণ অনশন চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিলাম। আমার যদি কোনো ক্ষতি হয়, সেজন্য নির্বাচন কমিশন দায়ী থাকবে।

টাঙ্গাইল জেলা রিটার্নিং কর্মকতা ও জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে আজ সোমবার দ্বিতীয় দিনের মতো তিনি এই আমরণ অনশন কর্মসূচি করছেন। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত তার এই কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে বলে তার কর্মী সমর্থকরা জানান।

এর আগে তিনি গতকাল রোববার তাঁবু গেড়ে কাঁথা, বালিশ বিছিয়ে সেখানে শুয়ে পড়ে অবস্থান কর্মসূচির পাশাপাশি অনশন কর্মসূচি পালন করেন। আজ সোমবার দুপুর ১টা পর্যন্ত তাকে অনশন কর্মসূচি পালন করতে দেখা যায়।

লতিফ সিদ্দিকীর দাবিগুলো হলো: কালিহাতীর থানার ওসি মীর মোশারফ হোসেনকে প্রত্যাহার, হামলাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার এবং সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষে শান্তিশৃঙ্খলা বজায় রাখার প্রতিশ্রতি, যাতে এ ধরনের হামলা ঘটনা আর না ঘটে।

লতিফ সিদ্দিকী রোববার সাংবাদিকদের বলেন, আমি রোববার সকালে কালিহাতী উপজেলার গোহালিয়াবাড়ি ইউনিয়নে আমার নির্বাচনী কাজে যাই। প্রথমত সরাতৈল এবং বল্লভবাড়ির মাঝামাঝি এলাকায় আমাদের ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করা হয়। পরে আমরা নির্ধারিত কর্মসূচি অনুযায়ী বল্লভবাড়িতে মহির উদ্দিন তালুকদারের বাড়িতে যাই।

সেখানে গোহালিয়াবাড়ি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মহির উদ্দিন তালুকদারের সাথে কথা বলার সময় স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা বর্তমান সংসদ সদস্য হাসান ইমাম খানের ইন্দনে হামলা চালানো হয়। হামলাকারীরা লাঠিসোটা দিয়ে ও ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে অন্তত চারটি গাড়ি ভাঙচুর করে। এতে আহত হন অন্তত ২০ জন নেতাকর্মী।