শরীয়তপুর-৩ আসনে নৌকা প্রার্থীর নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা

0
79

শরীয়তপুর প্রতিনিধি ঃ আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শরীয়তপুর-৩ (ডামুড্যা-ভেদরগঞ্জ-গোসাইরহাট) আসনে নৌাকা প্রতিকের প্রার্থী প্রয়াত জননেতা আব্দুর রাজ্জাকের তনয় নাহিম রাজ্জাক নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছেন।

শনিবার দুপুর ১২টায় ডামুড্যার বাস ভবনের আঙ্গীনায় সাংবাদিক ও আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের উপস্থিতি তে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, বিদ্যুতায়ন, আইনশৃঙ্খলা, টেকসই অবকাঠামো উন্নয়ন, পরিকল্পিত নগরায়ন, কর্মসংস্থান ও ডিজিটালাজেশনে উন্নয়নকল্পে তার নির্বাচনী এলাকা আধুনিকায়নের প্রতিশ্রুতি দিয়ে এ ইশতেহার ঘোষণা করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক অনল কুমার দে, ডামুড্যা পৌর মেয়র হুমায়ুন কবির বাচ্চু ছৈয়াল, ডামুড্যা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন মাঝি, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি কামাল উদ্দিন আহম্মেদ, সাধারণ সম্পাদক বাবলু ছৈয়াল, উপজেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা খালেদুর রহমান শিকদার প্রমূখ।

নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের নির্বাচনী ইশতেহারের সংক্ষিপ্ত বিবরণ তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অনল কুমার দে। তিনি বক্তব্যে বলেন, আওয়ামীলীগ সরকারের আমলে আপনারা মোবাইল ফোনে সকল প্রকার সেবা গ্রহন করার সুযোগ পেয়েছেন।

প্রতিটি উপজেলা সদরে মসজিদ নির্মাণ ও একটি করে মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও একটি করে কলেজ জাতীয় করণ করা হয়েছে। সমজিদের ইমামদের বেতন প্রথা চালু হয়েছে। প্রয়াত নেতা আব্দুর রাজ্জাক আধুনিক শরীয়তপুরের রূপকার।

তিনি মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক। শরীয়তপুরে বিদ্যুত এনেছিলেন আব্দুর রাজ্জাক আর ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দিয়েছে নাহিম রাজ্জাক। শরীয়তপুরের রাস্তাঘাট তৈরী করেছে আব্দুর রাজ্জাক আর ঘরে ঘরে রাস্তা পৌঁছে দিয়েছে নাহিম রাজ্জাক। ১৯৯৬ সালে মন্ত্রী হওয়ার পর উন্নয়নের কাজ শুরু করেছে আব্দুর রাজ্জাক, আর উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখছে নাহিম রাজ্জাক। উন্নয়নের ধারা তরান্বিত করতে নাহিম রাজ্জাককে নৌকা প্রতিকে ভোট দিয়ে বিজয় ছিনিয়ে আনতে হবে।

নাহিম রাজ্জাক তার নির্বাচনী ইশতেহারে বলেন, গ্রাম ও শহর আমার। আধুনিক নগরায়ন, তরুণ সমাজকে দক্ষ ও সমৃদ্ধিসহ জনশক্তিতে রূপান্তরিত ও কর্মসংস্থানের জন্য আমি কাজ করব। শরীয়তপুর-৩ (ডামুড্যা-ভেদরগঞ্জ-গোসাই রহাট) আসন জাতীয় বীর, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক সাবেক সফল মন্ত্রী ও আধুনিক শরীয়তপুরের রূপকার প্রয়াত জননেতা আব্দুর রাজ্জাকের আদর্শে ও স্বপ্নে ঘেরা। আমি তার সন্তান হিসেবে স্বনির্ভর শরীয়তপুরের অঙ্গীকার নিয়ে আগামী পাঁচ বছরের জন্য নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করছি।

তিনি বলেন, শিক্ষা ক্ষেত্রে আমি ব্যাপক নজরদারী বিস্তার করেছি। শিক্ষার মান উন্নয়নের জন্য বিদ্যালয় ভবন নির্মাণ, বিদ্যালয় ও জলেজ জাতীয় করণ, প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নৈশ প্রহরী কাম দপ্তরী নিয়োগ, ডিজিটাল ল্যাপ স্থাপন, টেক নিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ নির্মাণ, ডিজিটাল লাইব্রেরী স্থাপনসহ ছাত্রাবাস স্থাপন করেছি। ডামুড্যা উপজেলায় নার্সিং ইনস্টিটিউট নির্মাণ প্রক্রিয়া চালমান রয়েরছ।

সকল মানুষের স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা নিশ্চিত করনের লক্ষ্যে কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণ, ৩১ সয্যা বিশিষ্ট ৩টি হাসপাতাল কে ৫০ শয্যায় রূপান্তরিত করণ, ১০ সয্যা বিশিষ্ট ৩টি মা ও শিশু হাসপাতাল নির্মাণ করা হয়েছে। প্রতিটি হাসপাতালে একটি করে এ্যাম্বুলেন্স দেয়া হয়েছে।

ভবিষ্যতের গোসাইরহাট হাসপাতালকে ১০০ শয্যায় রূপান্তরিত করার পরিকল্পনা রয়েছে। ২০০৯ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ৭০ হাজার ৩২১ জন গ্রাহক বিদ্যুৎ সুবিধা পাচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা উন্নয়নে থানা আধুনিকায়ন করা সহ নতুন করে পুলিশ ফাঁড়ি ও তদন্ত কেন্দ্র স্থাপন করা হচ্ছে। টেকসই অবকাঠামো নির্মাণ, পরিকল্পিত নগরায়ন ও কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে দ্রুত গতিতে কাজ করা হচ্ছে।

শরীয়তপুর-৩ আসনের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে নৌকা প্রতিকে ভোট দিয়ে আবারও শেখ হাসিনাকে দেশে র প্রধান মন্ত্রী বানাতে হবে। তাহলে দেশ ও জাতীর উন্নয়ন সম্ভব। শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হলে আগামী ১ জানুয়ারী থেকে উন্নয়ন কাজ শুরু হবে।

একই সাথে শরীয়তপুর-৩ আসনের (ডামুড্যা-গোসাইরহাট-ভেদরগঞ্জ) অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করা সম্ভব হবে। প্রয়াত নেতা আলহাজ্ব আব্দুর রাজ্জাকের আদর্শের শরীয়তপুর আধুনিক রূপ পাবে।