খুলনাকে উড়িয়ে প্লে-অফে ঢাকা

0
59

হারলেই সেরা চারে থেকে প্লে-অফে খেলার আশা শেষ- এমন সমীকরণ সামনে রেখে খুলনাকে ১২৩ রানে থামিয়ে ৬ উইকেটের জয়ে চতুর্থ দল হিসেবে প্লে-অফে জায়গা করে নিয়েছে সাকিব আল হাসানের দল।

টানা পাঁচ হারের পর অবশেষে জয়ের মুখ দেখল ঢাকা। এই ম্যাচের দিকে তাকিয়ে ছিল রাজশাহী কিংস। ঢাকা হারলে প্লে-অফে খেলত রাজশাহী। সেটা আর হলো না। ১২ ম্যাচে ছয়টি করে জয়ে দুই দলেরই সমান ১২ পয়েন্ট। মুখোমুখি দুইবারের দেখায় দুই দলের জয়ও একটি করে। তবে নেট রানরেটে এগিয়ে থেকে পয়েন্ট টেবিলের চারে আছে ঢাকা, পাঁচে রাজশাহী। মাত্র ২ জয়ে সাত দলের মধ্যে সবার নিচে খুলনা।

শনিবারের এই ম্যাচ দিয়ে বিপিএলের ষষ্ঠ আসরের প্রাথমিক পর্বের খেলাও শেষ হয়ে গেল। সোমবার দুপুরে এলিমিনেটর ম্যাচে মুখোমুখি হবে ঢাকা ও চিটাগং ভাইকিংস। একই দিন সন্ধ্যায় প্রথম কোয়ালিফায়ারে লড়বে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ দুই দল রংপুর রাইডার্স ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স।

মিরপুর শের-ই-বাংলায় টস জিতে ব্যাট করতে নেমে খুলনার শুরুটা ভালো হয়নি। জুনায়েদ সিদ্দিক ছুঁতে পারেননি দুই অঙ্ক। ব্রেন্ডন টেলর আক্রমণাত্মক শুরু করলেও ইনিংস বড় করতে পারেননি। জিম্বাবুইয়ান ব্যাটসম্যান ১৪ বলে ২ চার ও এক ছক্কায় করেন ১৮ রান।

এরপর ডেভিড মালান (৭), অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ (১৪), নাজমুল হোসেন শান্ত (২৪) আর আল-আমিনও (১২) ইনিংস বড় করতে পারেননি। ৮১ রানের মধ্যে ৬ উইকেট হারিয়ে একশর আগেই অলআউট হওয়ার শঙ্কায় পড়ে গিয়েছিল খুলনা।

সেখান থেকে দলের স্কোর ১২৩-এ নিয়ে যাওয়ার পুরো কৃতিত্ব ডেভিড ভিসের। এই দক্ষিণ আফ্রিকান অলরাউন্ডার শেষ বলে রান আউট হওয়ার আগে ২৭ বলে একটি করে চার ছক্কায় করেন ইনিংস সর্বোচ্চ ৩০ রান। তাইজুল ইসলামের ব্যাট থেকে আসে ১২ রান।

ঢাকার হয়ে অধিনায়ক সাকিব ও রুবেল হোসেন নেন ২টি করে উইকেট। সাকিব চার ওভারে খরচ করেন ৩২ রান, রুবেল ২৭। একটি করে উইকেট নেন কাজী অনিক ও সুনীল নারিন।

আগের ম্যাচে ১২৮ রান তাড়ায় ১ রানে হেরেছিল ঢাকা। এবার আরেকটি ছোট লক্ষ্য তাড়ায় দলকে উড়ন্ত সূচনা এনে দেন নারিন ও উপুল থারাঙ্গা। মাত্র ১৬ বলে ৪৩ রানের উদ্বোধনী জুটি গড়েন তারা। ১৩ বলে ২ চার ও ৪ ছক্কায় ২৫ রান করা নারিনকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙেন মোহাম্মদ সাদ্দাম।

অধিনায়ক সাকিব (১) ও মিজানুর রহমান (০) ফিরেছেন দ্রতই। জয় থেকে ৩৬ রান দূরে থাকতে ৩০ বলে ৪ চার ও ২ ছক্কায় ৪২ রান করে ফেরেন শ্রীলঙ্কান ব্যাটসম্যান থারাঙ্গা।

এরপর নুরুল হাসান সোহানের ২৭ ও কাইরন পোলার্ডের ৯ রানের অপরাজিত দুটি ইনিংসে ৩১ বল বাকি থাকতেই লক্ষ্যে পৌঁছে যায় ঢাকা। ২৬ বলে ২ চার ও এক ছক্কায় ইনিংসটি সাজান সোহান।