পূর্ণিমা হাঁটছেন, পারছেন না ফেরদৌস

0
30

ঢালিউড সুন্দরী পূর্ণিমা হাঁটতে পারছেন কিন্তু দর্শকপ্রিয় নায়ক ফেরদৌস পারছেন না। গত রোববার নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় মোটরসাইকেল উল্টে আহত হন তারা। উপজেলার চর এলাহী ইউনিয়নের চরমুলিয়া এলাকায় ‘গাঙচিল’ চলচ্চিত্রের শুটিং চলা অবস্থায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

দুর্ঘটনায় পূর্ণিমা কাঁধের ডান পাশে, পিঠ ও কোমরে ব্যথা পান এবং ফেরদৌসের বাঁ পায়ের হাঁটু থেতলে যায়। এছাড়া তাদের দুজনেরই শরীরের বিভিন্ন জায়গা ছিলে যায়। দুর্ঘটনার পর সেখানেই চিকিৎসা নেন তারা। এরপর মঙ্গলবার নোয়াখালী থেকে ঢাকায় ফিরেছেন এই তারকা জুটি। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুয়ায়ী এখন নিজের বাসায় বিশ্রামে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

বুধবার দুপুরের পর নিজের বর্তমান শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে পূর্ণিমা বলেন, ‘দুর্ঘটনার সময় সমস্ত ভর আমার শরীরের উপরে পড়েছিল। যে কারণে ডান কাঁধে ও কোমরে ভীষণ চাপ লাগে। কাঁধ থেকে কোমর পর্যন্ত প্রচণ্ড ব্যথা। তবে এখন আগের থেকে অনেকটা ভালো অনুভব করছি। হাঁটা চলা করতে পারছি। এন্টিবায়েটিক চলছে। পুরো সুস্থ হতে হয়তো সপ্তাহ খানিক সময় লাগবে।

পূর্ণিমা হাঁটা চলা করতে পারলেও পারছেন না ফেরদৌস। তার শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে ‘গাঙচিল’ চলচ্চিত্রের পরিচালক নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামুল বলেন, ফেরদৌস ভাইয়ের বড় আঘাতটা পায়ে। তার বাঁ পায়ের হাঁটু থেতলে গেছে। তিনি উঠে দাঁড়াতে পারছেন না। হাঁটা চলা করতে পারছেন না। অনেকটা বিছানাতেই শুয়ে থাকতে হচ্ছে তাকে। তবে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা চলছে। শঙ্কার কিছু নেই। আশা করছি সপ্তাহ খানেকের মধ্যেই তিনি সুস্থ হয়ে উঠবেন।

২০১৪ সালে প্রকাশিত আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ‘গাঙচিল’ উপন্যাস অবলম্বনে নির্মাণ হচ্ছে চলচ্চিত্র ‘গাঙচিল’। ৬ ফেব্রুয়ারি থেকে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে শুরু হয় ‘গাঙচিল’ চলচ্চিত্রটির শুটিং।

গাঙচিল-এ প্রধান দুটি চরিত্রে অভিনয় করছেন ফেরদৌস ও পূর্ণিমা। এতে অতিথিশিল্পী হিসেবে দেখা যাবে কলকাতার অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তাকে। ‘গাঙচিল’র চিত্রনাট্য লিখেছেন মারুফ রেহমান ও প্রিয় চট্টোপাধ্যায়। চলচ্চিত্রটি প্রযোজনা করছে ইচ্ছেমত ও নুজহাত ফিল্মস।