ভাষা শহীদ দিবসে বিজয়’৭১র দিনব্যাপী কর্মসুচী পালিত

0
72

মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বির্নিমানের প্রত্যয়ে ভাষা দিবস উপলক্ষে বিজয়’ ৭১র দিনব্যাপী কর্মসুচী পালিত হয়েছে। কর্মসূচীর শুরুতে আজ ২১ ফেব্রুয়ারী সকাল ৯টায় চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ভাষা শহীদদের প্রতি ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়।

পরবর্তীতে নগরীর এনায়েত বাজারের রেলওয়ে হাসপাতাল কলোনী সিটি কর্পোরেশন উচ্চ বিদ্যালয়ের মিলনায়তনে রেলওয়ে হাসপাতাল কলোনী সিটি কর্পোরেশন উচ্চ বিদ্যালয় ও চট্টগ্রাম ভাষা সংস্কৃতি কেন্দ্রের সহযোগীতায় ‘একুশের কথামালা’ শীর্ষক এক আলোচনা সভা সংগঠনের সভাপতি সজল চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ডা.জামাল উদ্দিনের সঞ্চালনায় অনুষ্টিত হয়।

অনুষ্টানের শুভ উদ্ধোধন করেন শহীদ জায়া-ভগ্নি বেগম মুশতারি শফি। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন উক্ত শিক্ষা প্রতিষ্টানের প্রধান শিক্ষক উত্তম কুমার আচার্য। প্রধান অতিথি ছিলেন চবি উপাচার্য ড.ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী। প্রধান আলোচক ছিলেন বিটিভি চট্টগ্রাম কেন্দ্রের জিএম নিতাই কুমার ভট্টাচার্য।

বিশেষ অতিথি ছিলেন দৈনিক সমকালের জিএম সুজিত কুমার দাশ,উক্ত স্কুল কমিটির পরিচালনা র্বোডের সদস্য জসিম উদ্দিন চৌধুরী। প্রধান অতিথির বক্তব্যে চবি উপাচার্য বলেন, বিশ্বের প্রায় ছয় হাজার ভাষাভাষীর মানুষের মধ্যে বাংলা ভাষা দশম স্থানে রয়েছে। এই গৌরবের ভাষা প্রতিষ্ঠিত করতে অনেক তাজা প্রাণ, আন্দোলন, সংগ্রাম ও রাজপথ রক্ত রঞ্জিত হয়েছে।

একুশের ধারাবাহিতায় আমাদের আজকের স্বাধীনতা। স্বাধীনতার পেছনে বায়ান্নর আন্দোলনের আবদানকে অস্বীকার করার কোন উপায় নেই। বায়ান্নর আগে থেকে ভাষা আন্দোলন দানা বাঁধতে থাকে। বায়ান্নতে তা চূড়ান্ত পর্যায়ে রূপ নেয়।

তারই ধারাবাহিকতায় ছয় দফা, গণঅভ্যুত্থ্যান ও চূড়ান্ত স্বাধীনতা অর্জন। ভাষার জন্য জীবন উৎসর্গ করার কারণেই একুশে ফেব্রুয়ারি আজ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। বিশ্বে ১৮৮টি দেশে এই দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে পালিত হয়।

এতে আরো বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধা অমর কান্তি দত্ত,সংগঠনের কার্যকরী সভাপতি মোঃ জসিম উদ্দিন,সাবেক সাধারণ সম্পাদক ডা. আর কে রুবেল, সিনিয়র সহ-সভাপতি টি কে সিকদার, শিক্ষীকা নীলা বোষ।

অনুষ্টানে উপস্থিত ছিলেন স ম জিয়াউর রহমান,অধ্যক্ষ রতন দাশগুপ্ত,সৈয়দা শাহানা আরা বেগম, রাজীব চক্রবর্তী, ডা.অপূর্ব ধর, এস কে পাল সুজন, ডা.কামরুজ্জামান, সালাউদ্দিন লিটন, ডা.মিলন বারিকদার,মোঃ আরিফ, সুরেষ দাশ,মৃণাল কান্তি দাশ, প্রণব কান্তি মজুমদার, জনি বড়–য়া, শবনম ফেরদৌসি,ফারজিন বাপ্পী, রাফসান, শিলা, কলি, মিনিয়া চৌধুরী প্রমূখ।

আলোচনা সভা শেষে একুশের কথামালায় অংশগ্রহণকারী কৃতি শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়।