হাতীবান্ধায় সাংবাদিকের উপর সন্ত্রাসীর হামলা

0
70

শাহিনুর ইসলাম প্রান্ত, লালমনিরহাট প্রতিনিধি: লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষের ছবি তুলতে গিয়ে দৈনিক মানকন্ঠের সাংবাদিক আসাদুজ্জামান সাজুর উপর হামলা চালিয়েছে সন্ত্রাসীরা। এ সময় দৈনিক আমাদের সময়ের হাতীবান্ধা উপ- জেলা প্রতিনিধি নুরনবী সরকার ও পথচারী শরীফ মোল্লা হামলার শিকার হন। হামলাকারীরা এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী বলে জানিয়েছেন আহত সাংবাদিকরা। হামলার সময় সাংবাদিকদের ক্যামেরাও ভাংচুর করা হয়। 

মঙ্গলাবার সকালে মাদক মামলার তালিকা ভুক্ত আসামী উপজেলার বাড়াইপাড়া এলাকার সিরাজুল ইসলাম, সাবেক শিবির ক্যাডার ও একটি হত্য মামলার আসামী সদরুল আমিন রিপন ও তার ছোট ভাই খোকনসহ কয়েকজন আসাদুজ্জামান সাজুর উপর এ হামলা চালায় বলে আহতরা জানায়। বর্তমানে সাংবাদিক আসাদুজ্জামান সাজু ও পথচারী শরীফ মোল্লা স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন। 

প্রত্যক্ষদর্শী ও আহতরা জানান, সোমবার সন্ধ্যায় স্থানীয় আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান লিয়াকত হোসেন বাচ্চু ও সরওয়ার হায়াত খান গ্রুপের লোকজনের মাঝে স্থানীয় সাংসদ মোতাহার হোসেনের উপস্থিতিতে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে তা ধাওয়া ও পাল্টা ধাওয়ায় রুপ নেয়। পরে পুলিশের কঠোর নিরাপত্তায় সংসদ সদস্য সাবেক প্রতিমন্ত্রী মোতাহার হোসেন দলীয় অফিস ত্যাগ করেন।

ওই ঘটনার জের ধরে মঙ্গলবার সকাল থেকে লিয়াকত হোসেন বাচ্চু গ্রুপের নেতা-কর্মীরা টংভাঙ্গা ইউনিয়নের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়মীলীগের আহ্বায়ক সেলিম হোসেনের নেতৃত্বে শহরে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। দেশীয় অস্ত্র ও লাঠি সোটা নিয়ে শহরে মিছিল দেয়। 

এসময় অপর দিক থেকে সরওয়ার হায়াত খানের গ্রুপের লোকজন স্থানীয় বাসস্ট্যান্ডে এলে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। সেখানে সংঘর্ষের ছবি তুলতে গেলে মাদক ব্যবসায়ী সিরাজুল ইসলাম, সাবেক শিবির ক্যাডার সদরুল আমিন রিপন ও তার ছোট ভাই খোকনসহ কয়েকজন সাংবাদিক আসাদুজ্জামান সাজু, আমাদের সময়ের উপজেলা প্রতিনিধি নূরনবী সরকার ও পথচারীর উপর হামলা চালায়। 

এতে নুরনবী সরকার সামান্য আহত হলেও গুরুতর আহত হন আসাদুজ্জামান সাজু।
হাতীবান্ধা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওমর ফারুক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, উপজেলার আমতলা এলাকায় আওয়ামীলীগের দু’গ্রুপে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। যেদিকে সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে তার অপর দিকে পুলিশ অবস্থান নিয়েছিল। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

তিনি বলেন, সাংবাদিকের উপর হামলার ঘটনাটি দুঃখজনক। অভিযোগ পেলে আইনানুগ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি নিশ্চিত করেন। এদিকে সাংবাদিক সাজুর উপর সন্ত্রাসী হামলার তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ জানিয়েছেন স্থানীয় সাংবাদিক মহল।

হাতীবান্ধা প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল হক জানান, সাংবাদিকদের উপর এ ন্যাক্কারজনক ঘটনায় জেলায় ও উপজেলায় কর্মরত সাংবাদিকরা শীঘ্রই কঠোর কর্মসূচী ঘোষণা করবে।