শরীয়তপুরে ইয়াবাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

0
111

শরীয়তপুর প্রতিনিধি: গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শরীয়তপুর পৌর এলাকায় অভিযান চালিয়ে দুই মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। এ সময় একজন ঠিকাদার ও পালং বাজারের প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী ফরিদ শেখ (৩৫) এবং একাধিকবার মাদকসহ গ্রেফতার হওয়া আসামী লিয়াকত খানকে ইয়াবা ট্যাবলেট সহ আটক করা হয়।

আটককৃতদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ডিবি পুলিশ।

ডিবি পুলিশ সূত্র জানায়, ৬ এপ্রিল (শনিবার) দুপুরে পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ড তুলাসার গ্রামের মৃত মজিদ সিকদারের ভাড়া বাসা থেকে ২৪ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট সহ তাদের আটক করা হয়। আটককৃত ফরিদ শেখ শরীয়তপুর পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ড স্বর্ণঘোষ গ্রামের আবুল হাসেম শেখের পুত্র ও লিয়াকত খান শরীয়তপুর সদর উপজেলার সুজনদোয়াল গ্রামের সোবাহান খানের পুত্র।

তাদের গ্রেফতারের পর এলাকায় গুঞ্জন রয়েছে, ফরিদ শেখ মাধ্যমিক পাশের পর অর্থাভাবে উচ্চ মাধ্যমিক না পড়ে মালয়েশিয়া চলে যায়। বছরখানেক মালয়েশিয়া প্রবাসে থেকে দেশে ফিরে। দেশে ফিরে গ্রাম্য বিভিন্ন এনজিও থেকে সাপ্তাহিক ও মাসিক কিস্তিতে ঋণ নিয়ে ও পিতার সহায়তায় জন স্বাস্থ্য প্রকৌশলে ঠিকাদারি কাজ শুরু করে। সেই থেকে এ পর্যন্ত ফরিদ শেখ শরীয়তপুর শহরে একাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও শহরের গুরুত্বপূর্ণ এবং ব্যস্ততম এলাকায় একাধিক বহুতল ভবনের মালিক সহ কোটি কোটি টাকার মালিক বনেছে। সে প্রাইভেট কারে চলাফেরা করেন। এলাকাবাসীর ধারণা শুরু থেকেই ফরিদ শেখ মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত ছিল। তা নাহলে রাতারাতি এত সম্পদের মালিক হওয়া কি ভাবে সম্ভব।

লিয়াকত খান সম্পর্কে স্থানীয়রা জানায়, লিয়াকত এর পূর্বেও একাধিকবার মাদকসহ গ্রেফতার হয়েছে। সে একজন প্রফেশনাল মাদক ব্যবসায়ী। মাদক ব্যবসা কেন্দ্র করেই লিয়াকত ও ফরিদের সখ্যতা। ফরিদ শেখ মাদকের আমদানীকারক ও লিয়াকত খান তার সহযোগী এবং খুচরা বাজারে মাদক বিক্রিতে সহায়তা করে আসছে।

জেলা ডিবি পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম উদ্দিন জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ডিবি পুলিশের একটি দল তাদেরকে ২৪ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ আটক করে। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।