চাঁপাইনবাবগঞ্জে পানিশুন্য করে মাছ নিধন ॥ সেচসহ নানা দূর্ভোগ এলাকাবাসীর

0
58


চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার মধ্যমচরি মির্জাপুর মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি মৎস্য আইন অমান্য করে পেশীশক্তির জোরে একটি জলাশয়ের পানিশুন্য করে মাছ নিধন করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ফলে পার্শ্ব বর্তী জমিতে সেচ সুবিধাসহ স্থানীয় পানি ব্যবহারসহ অন্যান্য সুবিধা বন্ধ হয়ে গেছে।

এতে পার্শ্ববর্তী জমির ধান নষ্ট হওয়াসহ চরম দূর্ভোগে পড়েছেন এলাকাবাসী। জলায়শয়টি হচ্ছে, জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার ধাইনগর ইউনিয়নের গোসাইবাড়ী কোপরা জলকর। বিষয়টির তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ এবং অভিযুক্ত মির্জাপুর মৎস্যজীবী সমিতির নিবন্ধন বাতিলের দাবী জানিয়ে জেলা সমবায় কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন শিবগঞ্জ উপজেলার গুপ্তমানিক গ্রামের মৃত জয়নাল মৃত জয়নাল মন্ডলের ছেলে স্থানীয় বেলাল উদ্দিন মন্ডল। অভিযোগে এলাকার প্রায় ৩০টি পরিবারের অভিভাবক ও কৃষকও স্বাক্ষর করেছেন। একই অভিযোগের কপি চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসকের দপ্তরে দেয়া হয়েছে।

এলাকাবাসীর লিখিত অভিযোগে জানা গেছে, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার মধ্যমচরি মির্জাপুর মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি লিমিটেডের নামে ১৪২৩ থেকে ১৪২৫ বাংলা সন পর্যন্ত শিবগঞ্জ উপজেলার ধাইনগর ইউনিয়নের গোসাইবাড়ী কোপরা জলকরটি সরকারীভাবে ইজারা দেয়া হয়। কিন্তু মধ্যমচরি মির্জাপুর মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি লিমিটেডের সদস্যরা জলকরের সম্পূর্ণ মাছ নিধনের ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে গত ৭ এপ্রিল, ২০১৯ সরকারীভাবে ইজারার শর্ত অমান্য করে সেচযন্ত্রের মাধ্যমে জলাশয়ের পানি বাইরে সেচে ফেলে দেয় এবং জলকরের মাছ ধরে নেয়।

সদস্যরা মৎস্য আইন এর প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে পেশীশক্তির জোরে ওই জলাশয়ের পানিশুন্য করে মাছ নিধন করেছে বলেও অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে। সেচ করে পানি বাইরে ফেলে দেয়ায় সেচের পানি আবারও ওই জলাশয়ে ফিরিয়ে নিয়ে আসারও কোন সুযোগ রাখেনি তারা। এটাও চরম একটা মৎস্য আইনের লংঘন। ফলে পার্শ্ববর্তী জমিতে সেচ সুবিধাসহ স্থানীয় পানি ব্যবহারসহ অন্যান্য সুবিধা বন্ধ হয়ে গেছে।

এতে পার্শ্ববর্তী জমির ধান নষ্ট হলেও কৃষকরা কোন সেচের ব্যবস্থা না থাকায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। কোনভাবে সেচের ব্যবস্থা না হলে এলাকার প্রায় ৫০ বিঘা জমির ধান গাছ শুকিয়ে ক্ষেত নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশংকায় দুশ্চিন্তাগ্রস্থ এলাকার কৃষক। অনেক পরিমানের ক্ষতি হবে এলাকার কৃষকদের। চরম দূর্ভোগে পড়েছে এলাকার গবাদী পশু ও পরিবারের ব্যবহারের পানি নিয়েও। এতে এলাকার পরিবেশ চরম বিপর্যয়ের মধ্যে পড়েছে। এলাকাবাসীর দাবি বিষয়টি সরজমিন তদন্ত করে জলকর ও পরিবেশ নষ্টকারী মধ্যমচরি মির্জাপুর মৎস্যজীবী সমিতি লিমিটেডের নিবন্ধন বাতিলসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জোর দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

উল্লেখ্য, উপজেলার ধাইনগর ইউনিয়নের গোসাইবাড়ী কোপরা জলকরটি প্রায় ২০ বিঘা জমির উপর। জলকরের পানি দিয়ে ওই এলাকার প্রায় ৫০ বিঘা জমিতে বোরো ধানের আবাদ করেন কৃষকরা। জলকরের পানিতে এলাকার গবাদীপশু ও পারিবারের কাজেও ব্যবহার করেন স্থানীয়রা।

এব্যাপারে জেলা সমবায় কর্মকর্তা প্রফুল্ল কুমার প্রামানিক এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, শিবগঞ্জ উপজেলার মধ্যমচরি মির্জাপুর মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগের বিষয়গুলো সরজমিন তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।