শৌলপাড়ায় বিভিন্ন রাস্তার সরকারি গাছ কেটে উজার করা হচ্ছে পরিবেশ !

0
87

খোরশেদ আলম বাবুল, শরীয়তপুর ঃ শরীয়তপুর সদর উপজেলার শৌল পাড়া ইউনিয়নে সরকারি রাস্তার গাছ অপরিকল্পিত ভাবে কেটে নেয়ার ফলে পরিবেশ ঝুঁকির মুখে পড়ছে। ধ্বংস করা হচ্ছে বনায়ন।

তছরূপ হচ্ছে সরকারের সম্পদ। ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্যগণ দায় এড়িয়ে গিয়ে বলে তারা গাছ কাটার বিষয়ে কিছুই জানেন না। গাছ কাটার অভিযোগ এনে মামলার করার জন্য নির্দেশ প্রদান করেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার। মামলা করার প্রস্তুতি গ্রহন করেছেন ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, সদর উপজেলার চরচিকন্দী মাঝের কান্দি গ্রামের মৃত জানু ঢালীর ছেলে নুর হোসেন ঢালী তার বাড়ির সামনে দিয়ে যাওয়া সরকারি রাস্তার পাশ থেকে ৪টি বড় আকৃতির রেন্ডি কড়ই গাছ কেটে ফেলেছে। সংবাদ পেয়ে চিকন্দী পুলিশ ফাঁড়ি ও চিকন্দী ইউনিয়ন ভূমি অফিস বাঁধা দিয়ে গাছ আবদ্ধ রেখেছে। পরবর্তীতে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে মামলা করার প্রস্তুতি গ্রহন করছেন এ ভূমি সহকারী কর্মকর্তা ফরহাদ হোসেন মোল্যা।

নুর হোসেন ঢালী বলেন, রাস্তার দুই পাশের জমি আমাদের। আর এই গাছ আমরাই লাগাইছি। এখন গাছ কাটতে গেলে চিকন্দী ফাঁড়ির পুলিশ ও চিকন্দী তহশিল অফিসের পিয়ন এসে গাছ কাটতে বাঁধা দেয়। এখন গাছ কাটা বন্ধ রাখছি। আমরা কাগজপত্র নিয়ে তহশিল অফিসে যাবো।

শৌলপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান ইয়াছিন হাওলাদার বলেন, গাছ কাটার বিষয়ে আমাকে কেউ কিছুই জানায়নি। বিষয়টি এখন ইউএনও স্যার পর্যন্ত গড়িয়েছে। সেই এখন আইনী ব্যবস্তা গ্রহন করবে।

চিকন্দী ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা ফরহাদ হোসেন খান বলেন, গাছ কাটার সংবাদ পেয়ে অফিস সহায়ক নুরুল ইসলামকে ঘটনাস্থলে পাঠাই। ঘটনার সত্যতা পেয়ে আমার নির্দেশেই বাঁধা প্রদান করে গাছ আবদ্ধ রাখা হয়েছে। পরবর্তীতে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশনায় মামলা করার প্রস্তুতি গ্রহন করেছি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মাহাবুব রহমান শেখ বলেন, বিনোদপুর, চিকন্দী ও শৌলপাড়া এলাকায় সরকারি গাছ কাটার প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। এর পূর্বে বিনোদপুর ও শৌলপাড়ায় এ বিষয়ে মামলাও হয়েছে। আবার সরকারি রাস্তার গাছ কাটা শুরু হয়েছে। তহশিলদারকে বলে দেয়া হয়েছে কারো কোন কথা না শুনে সরাসরি মামলা করার জন্য।