চাঁপাইনবাবগঞ্জে জৈব বালাইনাশক ব্যবহারে আমের হপার দমন শীর্ষক মাঠ দিবস

0
110



চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ জৈব বালাইনাশক ভিত্তিক আইপিএম পদ্ধতি তে আমের হপার দমন শীর্ষক মাঠ দিবস হয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জে। রবিবার সকালে উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্র চাঁপাইনবাবগঞ্জ এর সম্মেলন কক্ষে ১০০ জন জেলার আম চাষীদের নিয়ে এই মাঠ দিবস হয়।

মাঠ দিবসের শুরুতে উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্র চাঁপাইনবাবগঞ্জ এর চত্বরে সরসারি বাগানে বাস্তবে আমের হপার পোকা দমনের বিষয়ে ধারনা প্রদান করা হয়।

মাঠ দিবসে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউটের সাবেক মহাপরিচালক ও আইপিএম আই এল প্রজেক্ট বাংলাদেশের কো-অর্ডিনেটর মো. ইউসুফ মিয়া।

ইউএসআইডি সাহায্যপুস্ট আইপিএম আই এল প্রজেক্ট বাংলাদেশ সাইট এর আর্থিক সহযোগিতায় এবং বিএআরআই উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্রের কীটতত্ব শাখার বাস্তবায়নে মাঠ দিবসে সভাপতিত্ব করেন উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্র চাঁপাইনবাবগঞ্জ এর মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও স্টেশন ইনচার্জ ড. মো. শফিকুল ইসলাম।

হপার পোকার ক্ষতিকর দিকগুলো ও করনীয় বিষয় তুলে ধরেন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউট গাজিপুরের উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও প্রকল্পের প্রধান ইনভেস্টিগেটর ড. মো. শাহাদাৎ হোসেন। হপার পোকা দমনে করণীয় বিষয়ে বক্তব্য রাখেন রাজশাহী উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. আলিম উদ্দিন।

মাঠ দিবস পরিচালনা করেন উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্র চাঁপাইনবাবগঞ্জের উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. মোশারফ হোসেন। বক্তারা বলেন, জেলার আম গাছে মুকুলের শুরু থেকেই বেশী বেশী পরিমানে বিভিন্ন কেমিক্যাল ব্যবহার করার ফলে নিরাপদ আম উৎপাদন ব্যহত হচ্ছে।

কেমিক্যাল মানবদেহের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। ফলের রাজা জেলার আমের সুনাম ধরে রাখতে সকল চাষীদের আম উৎপাদনে পরিমিতভাবে কীটনাশক ব্যবহার এবং জৈব বালাইনাশক ব্যবহার করে নিরাপদ আম উৎপাদনের অনুরোধ জানানো হয়।

বক্তারা মাঠ দিবসের বাস্তব ধারণাগুলো অন্যান্য চাষীদের সাথে বিনিময় করে জেলায় নিরপদ আম উৎপাদনে সহায়তারও অনুরোধ জানান।