রাজনীতি, শিক্ষা অর্জন ও প্রয়োগ ???

0
98

বর্তমান শিক্ষার প্রাপ্তি রাজনৈতিক কারণে অনেকাংশেই ভূ-লন্ঠিত। যার কারণে জীবন আবদ্ধ হয়ে যাচ্ছে সীমাহীন সংর্কীনতায়। ক্রমে ক্রমেই চিন্তা-চেতনার জাগরণ জাতি-গোষ্ঠি কিম্বা ব্যক্তিক চাওয়া-পাওয়াতেই সীমাবদ্ধ থাকছে। যা সমাজ-ও জাতির জন্য মোটেও মঙ্গল জনক নয়। তথাকথিত শিক্ষার ফসীল ‘নৈতিক ধাপকে পিছনে ফেলে অর্থনৈতিক পরিসীমায় ব্যাপিত’ হতে চলেছে। আর এই অ-সার উন্নতিতে ‘রাজনীতি’ আগুনে ‘ঘি’ ঢালা সমবেত কাজ করে যাচ্ছে। যা পুরোপরিই রাজনীতির সংজ্ঞা বিরোধী-এক নব-অযৌক্তিক ফরমালীন মিশ্রন  উন্নয়-তত্ত্ব কথা।

পৃথীবির সর্ব কালের সর্ব শ্রেষ্ঠ ধর্ম হচ্ছে আত্ম-উপলব্ধির দ্বারা মানব কল্যাণ কামনা। রাজনীতির মূল লক্ষ্যও মানব কল্যাণ- যা নিজেকে পরিশোদ্ধ নবায়নের দ্বারা, অপরের কল্যাণে বাস্তবায়ন করতে হয়।  যুগ-যুগের গভেষণায় দেখা গেছে, মানুষ কেবল শিক্ষার দ্বারা নিজেকে পরিশুদ্ধ করতে। আর অভিজ্ঞতা কেবল সহচর মাত্র। কালি আর কলম দ্বারা শিক্ষাকে উপলধ্বি সম্ভব কিন্তু ধারন করার কাজ ব্যক্তির নিজের। পুস্তক ও কলম ছাড়া বিদ্যা যেমন দৈব, তেমনী নিজের তনে অ-ধারনকৃত বিদ্যা কাচেঁ বোতলের ভিতরের মধূ চাটার সমতুল্য।

বর্তমান ব্যাণিজিক ভিত্তিক শিক্ষায় অর্থ উর্পাজন ও শরীর ভাল রাখা গেলেও চিন্তার বাস্তব বিকাশ ও মনো-তৃপ্তি প্রশ্নবোধক ? সর্বপোরি অশুদ্ধ রাজনীতির কালো থাবা শরীর ভাল রাখার মন্ত্রকে আরও উস্কে দিচ্ছে, যার ফলাফল ভয়াবহ। যদি বলেন, যুগ-পরিক্রমাই এর সমাধান’ তবে নিশ্চিত মনে করবেন মানব সভ্যতার প্রলয় সন্নিকটে।

একথা সত্য যে, কোন প্রাপ্তিই ছোট নয়। আবার বলা যায় অশুদ্ধ প্রাপ্তি; প্রাপ্তি নয়। বিশুদ্ধ প্রাপ্তির বাস্তব ও সঠিক প্রয়োগ সত্য স্বনির্ভর। আজ বাংলাদেশসহ উন্নত বিশ্বের অধিকাংশ রাষ্ট্রই নিণ্কুশ প্রাপ্তি- অর্থনৈতিক অপ-প্রয়োগে নিজ বা জাতির অসত্য উন্নতিতে ব্যবহার করছে। যা অধিকাংশই মানব কল্যাণের পরিপন্থী, ও প্রকৃতি ধব্বংশের মূল কারণ।

যার ফলে আজ সমগ্র বিশ্বব্যাপি জাতিতে জাতিতে রেষারেষি সৃষ্টি হচ্ছে। যার ফলে দেখা দিচ্ছে চুরি-রাহজনী, খুন-খারাপী হিংসা-মারামারি নিত্য নৈমিত্তিক ব্যাপার মাত্র। যার জন্য পবিত্র কুরআনে বলা হয়েছে ‘আমি নিশ্চয় কিছু লোককে অনুগ্রহ করেছি সত্য ও ন্যায়ের পথে, তাদের পথ অনুস্বরণ কর। 

আজ শিক্ষা প্রয়োগের ভ্রান্ত ব্যাখ্যা ও  ছলনায় স্বয়ং ভগবানও অস্থির হয়ে উঠেছে। ফলে ছলনায়- সত্য-প্রকৃতি বিষয় গুলোতে সৃষ্টি হয়েছে গোলযোগ ও বিভ্রান্তি।

শিক্ষা, রাজনীতি, প্রয়োগ ও বাস্তবায়ন  অপ-প্রয়োগ ও অসাধুতায় অর্থনৈতিক সুবিধা অর্জনের শরীর ভাল রাখার কৌশলে পরিনত হচ্ছে। অথচ শরীর নশ্বর। শিক্ষা ও রাজনীতি, মানব কল্যাণেই অভিনশ্বর। তাই রাজনীতির সংজ্ঞায় বলা হয়েছে – politic is the public service for all kinds of national Interest -। মূলকথা শিক্ষার দ্বারা অর্জিত আত্ম-আধ্যাত্ব জ্ঞানই রাজনীতিকের প্রধান সম্বল। আর বিশুদ্ধ জ্ঞান অর্জন ও মানব কল্যাণের বাস্তব প্রয়োগেই রাজনীতি সার কথা।