‘মানসিকতায় দুর্নীতিপ্রবণ নেতাকর্মীদের দলের না থাকাই যথার্থ মনে করি

0
51

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘মানসিকতায় দুর্নীতিপ্রবণ নেতাকর্মীদের দলের ভেতরে না থাকাই মনে করি যথার্থ।’মঙ্গলবার সচিবালয়ে সমসাময়িক ইস্যুতে সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমাদের মতো দেশে ক্ষমতাসীন দলে সবসময় একটা সমস্যা থেকে যায়। কিছু আগাছা-পরগাছা, এসব সুবিধাবাদী স্রোতের সঙ্গে ক্ষমতাসীন দলে অনুপ্রবেশ করে। এরাই বেশিরভাগ সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। 

মন্ত্রী বলেন, ‘ছাত্রলীগে একটা সিদ্ধান্ত হয়েছে। যুবলীগও বলেছে, তারা ট্রাইব্যু নাল গঠন করছে, তাদের নিজেদের যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে, তাদের শুনানি দেয়ার জন্য।

এখানে পরিষ্কার বিষয় হচ্ছে এটি যে, সরকার এবং দলের ইমেজটা ক্লিন হওয়া দরকার। প্রধানমন্ত্রী ক্লিন ইমেজের সারাবিশ্বে প্রশংসিত ও সমাদৃত। কিছু কিছু বিষয় এসে যায় যেগুলো জনগণের কাছে দলের-সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করে।’

‘আমাদের নেত্রীর নির্দেশনা অনুসরণ করে সব পর্যায়ে দলের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করার জন্য, সরকারের ভাবমূর্তি স্বচ্ছ করার জন্য যারা অনিয়ম ও অপকর্ম করে, যারা মানসিকতায় দুর্নীতিপ্রবণ, এই ধরনের নেতাকর্মীদের দলের ভেতরে না থাকাই আমরা মনে করি যথার্থ। দুষ্ট গরুর চেয়ে শূন্য গোয়াল ভালো- এটাই আসলে আমরা চিন্তা-ভাবনা করছি।’

যুবলীগের চাঁদাবাজির বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘তারা হয়তো বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করে প্রস্তুতি নিচ্ছিল। তাও তো হতে পারে। রোলিং পার্টিতে নানা রকমের লেম্যান থাকে। প্রধানমন্ত্রী একটা দৃষ্টান্ত স্থাপন করে পদ দেখিয়ে দিয়েছেন। এখানে প্রত্যেকে আপন ঘরে শুদ্ধি অভিযান চালাতে পারে, সেটা তো খুবই ভালো।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রতিদিন ‘দুর্নীতি’, ‘দুর্নীতি’ বলে তারস্বরে চিৎকার করছেন। আমি শুধু একটুকু বলতে চাই, এই সরকারের আমলে হাওয়া ভবনের যে লুটপাট দুর্নীতি সেটা হয়নি। দুর্নীতিতে পাঁচবার বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন একটা দল।