ইবিতে প্রক্টরের অপসারণ দাবিতে ছাত্রলীগের আন্দোলন, অবরুদ্ধ ক্যম্পাস

0
62


ইবি প্রতিনিধি : ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমানের অপসারণের দাবিতে দিনভর আন্দোলন করছে শাখা ছাত্রলীগের পদবঞ্চিত নেতা-কর্মীরা। রবিবার দুপুর ১ টার দিকে দলীয় টেন্ট থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের, মেইন গেইটে তালা ও প্রশাসন ভবন অবরুধ করেছে নেতাকর্মীরা।

জানা যায়, ২১ সেপ্টেম্বর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান ৩য় মেয়াদে দায়িত্ব গ্রহণের দিনেই তার পদ অপসারণের জন্য প্রশাসনকে ২৪ ঘন্টার আল্টিমেটাম দেয় ছাত্রলীগের পদবঞ্চিত নেতা-কর্মীরা। বেধে দেয়া ২৪ ঘন্টা সময় অতিবাহিত হওয়ার পরও প্রক্টরের পদে পরিবর্তন না আনায় রবিবারে এই কঠোর আন্দোলনে নামেন তারা। এসময় তারা দলীয় টেন্ট থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। মিছিলে তৌকির মাহফুজ মাসুদ, রিজভী আহমেদ পাপন, ফয়সায়ল সিদ্দীকী আরাফাত, মিজানুর রহমান লালনসহ দলের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন ।
মিছিল শেষে প্রক্টরকে অপসারণের দাবি জানাতে উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন উর রশিদ আসকারীর সাথে দেখা করেন নেতাকর্মীরা। এসময় উপাচার্য কাছ থেকে দৃশ্যত কোন আশ্বাস না পেলে প্রশাসন ভবনের ভিতরে অবস্থান করে নেতাকর্মীরা। পরে ড. মাহবুবের নামে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকে আন্দোলনকারীরা।

পরে দুপুর ১ টা ৪৫ মিটিটের দিকে প্রধান ফটকে তালা ঝুলিয়ে আবরোধ করে। এদিকে প্রধান ফটক অবরোধের কারনে শিক্ষক-শিক্ষার্থী বহন করা নির্ধারিত দুপুর ২ টার বাস ক্যাম্পাস থেকে কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ এর উদ্দেশ্যে ছেড়ে যেতে পারেনি। ক্যাম্পাসের বাস ছেড়ে না যাওয়ায় ভোগান্তিতে পরে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

এদিকে দুপুর ৩ টার দিকে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ফের ভিসিরি সাথে সাক্ষাৎ করে। এসময় ভিসি অধ্যাপক ড. হারুন উর রশিদ আসকারী তাদেরকে প্রধান ফটক অবমুক্ত করে দিতে অনুরোধ করেন। এছাড়াও তিনি শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের জিম্মি করে কোন দাবি আদায় সম্ভাব নয় বলে জানান।

এসময় নেতা-কর্মীরা অবরোধ তুলে নিতে অপারগতা প্রকাশ করে বলেন, প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুব ২০১৪ সালের ২৫ আগস্ট ছাত্রলীগের উপর পুলিশকে গুলি করার নির্দেশ দিয়েছেন। যে ব্যাক্তি ছাত্রলীগের উপর গুলি করার নির্দেশ দেয় তাকে কিভাবে বিশ^বিদ্যালয়ের প্রক্টর হিসেবে আবারো দায়িত্ব দেওয়া হয়। তাঁকে অব্যহতি না দেওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।

এবিষয়ে প্রক্টর ড. মাহবুবর রহমান বলেন, ‘আমি দায়িত্ব নেওয়ার আগেই ক্যাম্পাসে ৭ দিনের মধ্যে মাদক এবং অছাত্র মুক্ত করার ঘোষণা দেই। তারা এটাকেই কেন্দ্র করে আন্দোলন করছে।’

এবিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন উর রশিদ আসকারী বলেন, ‘তাকে কিছুদিনের জন্য নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। প্রক্টরের দায়িত্বের জন্য যোগ্য লোক খোঁজা হচ্ছে। এরমধ্যে যোগ্য ব্যাক্তি পেলে তাঁর উপর দায়িত্ব দেওয়া হবে। প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে অবরোধ চলছিল।