পেটে গজ রেখে সেলাই, অভিযোগ বন্ধে যত কাণ্ড !

0
52
শাহিনুর ইসলাম প্রান্ত, লালমনিরহাট প্রতিনিধি: পেটে গজ রেখেই সেলাই দেয়ার ঘটনা ধামাচাপা দিতে স্ট্যাম্পে রোগীর অঙ্গিকার নামা নিলেন লালমনির হাটের নিরাময় ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনোসিস সেন্টার কর্তৃপক্ষ। সোমবার রাতে শহরের বিনিময় ফিলিং স্টেশনে রোগী ফারুক মিয়ার কাছে অঙ্গিকারনামা লিখে নেন ক্লিনিক ব্যবস্থাপক মাসুদুর রহমান মাসুদ।
 
এরআগে রোববার রোগীকে ১০ হাজার টাকায় ম্যানেজে ব্যর্থ হলে বিষয়টি জানাজানি হয় এবং দৈনিক মানবকণ্ঠসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। রোগী ফারুক মিয়া লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের মান্নানের চৌপতি মাশানকুড়া এলাকার ফজলুল হকের ছেলে। পেশায় স্থানীয় বটতলা মোড় বাজারের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী।
 
রোগী ফারুক মিয়া ও স্থানীয়রা জানান, গত ঈদ উল আযহার পরে পেটে ব্যথা অনুভব হলে লালমনিরহাট শহরের নিরাময় ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনোসিস সেন্টারে ভর্তি হন ব্যবসায়ী ফারুক। সেখানে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে কর্তব্যরতরা জানান, এপেন্টি সাইডের অপারেশন করতে হবে। ক্লিনিকে দায়িত্বরতদের পরামর্শে লালমনিরহাট সাচিক সভাপতি ডা. ভোলানাথ ভট্টাচার্যের তত্ত্বাবধানে অপরেশন করে ৪ দিনে ১৮ হাজার ৫ শত টাকা বিল দিয়ে চলে আসেন তিনি।
 
কিছুদিন পরে সুস্থ না হয়ে উল্টো শরীরের সমস্যা বেড়ে গেলে ফারুককে তার পরিবার রংপুর শহরের পারফেক্ট ক্লিনিকে ভর্তি করেন। সেখানে ডা. সাহেব আলী পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে জানান, পেটে কোন বস্তু রয়েছে। যা পুনরায় অপারেশন করে বের করতে হবে। সেই চিকিৎসকের পরামর্শে দ্বিতীয় বারের মত অপারেশন করে পেট থেকে বের করা হয় গজ ব্যান্ডেজ। সেখানে ২০ দিন চিকিৎসা শেষে প্রায় ৬০/৭০ হাজার টাকা ব্যায় করে কিছুটা সুস্থতা নিয়ে শুক্রবার (৪ অক্টোবর) বাড়ি ফিরেন ব্যবসায়ী ফারুক মিয়া।
 
এ বিষয়ে ক্ষতিপূরণ ও তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে রোববার সকালে লালমনির হাট যান ক্ষতিগ্রস্থ রোগী ফারুক মিয়া। বিষয়টি জানতে পেয়ে নিরাময় ক্লিনিকের মালিক শামছুল আলম রোগী ফারুককে কৌশলে ডেকে নিয়ে দিনভর আপোষের চেষ্টা চালান। তাকে ১০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার চেষ্টা করলে কৌশলে বেড়িয়ে আসেন ফারুক মিয়া।
 
পরে বিষয়টি জানা জানি হলে “লালমনিরহাটে পেটে গজ রেখে সেলাই” শিরোনামে একটি সংবাদ বিভিন্ন গণ্যমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। এতে ক্লিনিক কৃর্তপক্ষ নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করতে তাড়াহুরা করে সোমবার রাতে শহরের বিনিময় ফিলিং স্টেশনে জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি সিরাজুল হকের অফিসে রোগীকে নিয়ে আপোষ মীমাংসায় বসেন।
 
সেখানে ১৭ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ দিয়ে রোগী ফারুক মিয়ার কাছে জোর করে দেড়শত টাকা মূল্যের দুইটি নন জুড়িশিয়াল ফাঁকা স্ট্যাম্পের স্বাক্ষর নেন বলে জানান রোগী ফারুক মিয়া। বিষয়টি নিয়ে কোথাও অভিযোগ না করতেও অনুরোধ করেন।
 
ক্ষতিগ্রস্থ রোগী ফারুক মিয়া বলেন, দুর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদের ( ইউপি) সদস্য সাত্তার মিয়া, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলামসহ বিনিময় ফিলিং স্টেশনে গেলে নিরাময় ক্লিনিকের ম্যানেজার মাসুদ ১৭ হাজার টাকা দিয়ে কোথাও অভিযোগ দিতে নিষেধ করেন।
 
এ সময় একটি একশত টাকা ও একটি ৫০ টাকার ফাঁকা স্ট্যাম্পে জোর করে স্বাক্ষর নেন। লিখতে বললে তারা পরে লিখে নিবেন বলে জানান। কিন্তু মঙ্গলবার তাদের ইচ্ছামত শর্তে লেখা একশত টাকার স্ট্যাম্পটি ফেসবুকে দেখেছি। তবে ৫০ টাকার ফাঁকা স্ট্যাম্পটি তাদের কাছে রেখে দিয়েছেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি।
 
বিনিময় ফিলিং স্টেশনের মালিক ও জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহভাপতি সিরাজুল হক বলেন, ক্লিনিক পক্ষ ও ক্ষতিগ্রস্থ রোগীর পরিবার তার চেম্বারে বৈঠক করে সমাধান করেছেন। তবে তিনি ওই সময় উপস্থিত ছিলেন না। তাই ফাঁকা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষরের বিষয়টি জানেন না বলেও জানান তিনি।
 
নিরাময় ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনোসিস সেন্টারের ব্যবস্থাপক মাসুদুর রহমান মাসুদ বলেন, জোর করে নয়, বৈঠকে বসলে রোগী স্বেচ্ছায় অঙ্গিকার নামা প্রদান করেন। তবে অব্যবহৃত ৫০ টাকার স্ট্যাম্পটির বিষয়ে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।
 
নিরাময় মালিক শামছুল আলমকে একাধিকবার ফোন করলে তিনি সাংবাদিকদের ফোন রিসিভ করেননি। লালমনিরহাট সিভিল সার্জন ডা. কাসেম আলী বলেন, বিষয়টি লোকমুখে শুনেছি। তবে লিখিত অভিযোগ না পাওয়ায় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব হচ্ছে না।