‘মেইডস ফর ট্রান্সফার’ ‘মেইডস ফর সেল’বিজ্ঞাপন দিয়ে গৃহকর্মীদের ক্রয়-বিক্রয় !

0
46

ইন্টারনেট দুনিয়ায় বিজ্ঞাপন দিয়ে গৃহকর্মীদের দাস বানিয়ে নেওয়ার চক্র চলছে কুয়েত জুড়ে৷সূত্র: বিবিসি৷ রিপোর্ট প্রকাশের পরেই দুনিয়া জুড়ে শোরগোল৷ চাপে পড়ে কুয়েত প্রশাসন তদন্ত শুরু করছে বলে জানায়৷

তদন্ত প্রতিবেদনে বিবিসি নিউজ অ্যারাবিক তুলে ধরে, গুগল ও অ্যাপলের অ্যাপের মাধ্যমে ইন্টারনেটে এই ব্যবসার পাশাপাশি, ফেসবুক মালিকানাধীন ইন্সটাগ্রামেও সক্রিয় চক্রটি৷ অনলাইনের মাধ্যমে মহিলা গৃহকর্মীদের ক্রয়-বিক্রয় করা হয়। বিক্রির সময় হ্যাশট্যাগে লেখা হয়েছে ‘মেইডস ফর ট্রান্সফার’ ‘মেইডস ফর সেল’।

আরব দুনিয়ায় বাড়ির কাজের লোক কেনা বেচার অভিযোগ দীর্ঘদিনের৷ সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরশাহী, কুয়েত, বাহারিন সহ বিভিন্ন দেশে যাওয়া অনেকেই এই ধরণের কাজে নেমে চরম হেনস্থার শিকার হন বলে বিভিন্ন সময়ে খবর উঠে আসে৷

এবার যেভাবে অন লাইনে কুয়েত থেকে দাস শ্রমিক কেনাবেচার বিষয়টি তুলে ধরেছে বিবিসি তাতে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে৷ রিপোর্ট প্রকাশের পরেই বিজ্ঞাপন সরিয়ে নিতে নির্দেশ দেয় প্রশাসন৷ সংশ্লিষ্ট ওয়েব সাইটের তরফে মুচলেকা নেওয়া হয়৷ তাতে বলা হয়েছে ভবিষ্যতে তারা এ ধরণের আর কোনও কাজ করবে না।

বিবিসির তদন্ত প্রতিবেদন বলছে, কুয়েতের পথেঘাটে চলাফেরার সময় আপনি দাস মহিলাদের দেখতে পাবেন না। তাদের ঘরের মধ্যে বন্দি করা হয়৷ মৌলিক অধিকারগুলোও থাকে না। তারা ছুটি পায় না৷ বিশেষ অ্যাপ ব্যবহার করে এই দাস মহিলাদের ছবি দেখা সম্ভব৷ তাদের কেনা বেচাও হয় অনলাইনে৷

গোপনে সেই দাস মহিলাদের বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করে বিবিসি প্রতিনিধিরা৷ উঠে আসে চরম অমানবিক দিকটি৷ তারপরেই রিপোর্ট প্রকাশ হয়৷ এর জেরে আরব দুনিয়ায় চলতে থাকা প্রাচীন দাস ব্যবসার আধুনিক পদ্ধতি সম্পর্কে জানতে পারা গিয়েছে৷

পাকিস্তান, নেপাল, ভারত, বাংলাদেশের বহু নাগরিক কাজের জন্য কুয়েতে থাকেন৷ এই সব দেশের মহিলারা ক্রমে কুয়েতের দাস ব্যবসার শিকার হয়ে পড়েন৷

প্রবল অত্যাচার সহ্য করে তারা টিকে রয়েছেন বলেই তদন্ত রিপোর্টে উঠে এসেছে৷ বিষয়টি নিয়ে কুয়েত প্রশাসনের কর্তা ড. মুবারক আল আজিমি বলেছেন, তদন্তের পর অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা হবে৷ ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ দেবে সরকার৷