চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাটে ডাকাতির ঘটনায় পুলিশের হাতে আরো ৩ জন গ্রেফতার !

0
144
চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাটে ৩টি নৈশকোচসহ বিভিন্ন যানবাহনে ডাকাতির সঙ্গে জড়িত আরো ৩ জনকে গ্রেফতার করেছে জেলা পুলিশ। বুধবার রাতে জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এসময় ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত ধারালো অস্ত্র, লুট হওয়া স্বর্ণালঙ্কার ও টাকা উদ্ধার করে পুলিশ।
গ্রেফতারকৃত ৩ ডাকাত হচ্ছে, জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার বালিয়াদিঘীর মধ্যবাজার এলাকার মোঃ ভলূর ছেলে রেজাউল করীম (৪০), মৃত সমশের আলীর ছেলে আনোয়ারুল ইসলাম ওরফে আনু গুরু (৪৫) ও একই ইউনিয়নের শান্তিমোড় হামিদনগরের মোঃ মোফাজ্জল হকের ছেলে তাজেল আলী (৩৫)। অভিযানে জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখা ও ভোলাহাট পুলিশ যৌথভানে অংশ নেয়।
বৃহস্পতিবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলন করে পুলিশ সুপার এ এইচ এম আব্দুর রকিব জানান, ডাকাতির ঘটনার পরপরই পুলিশের একাধিক দল ডাকাতদের ধরতে অভিযান শুরু করে। তথ্য প্রযুক্তির সহায়তা ও অন্য সূত্রের খবরের ভিত্তিতে ওই ৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়। তারা ডাকাতির সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে।
গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে ঘটনার সময় লুট হওয়া ১২টি মুঠোফোন, স্বর্ণালঙ্কার ও ১৯ হাজার ৫০০ টাকা উদ্ধার করা হয়। এছাড়া ডাকাতিতে ব্যবহৃত ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করে পুলিশ। আটক কৃতদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। এর আগে মঙ্গলবার রাতে আরো ৪ জনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-৫ এর চাঁপাইনবাবগঞ্জ ক্যাম্পের সদস্যরা।
পুলিশ সুপার আরও জানান, ভোলাহাটের ডাকাতির ঘটনায় অজ্ঞাত ১৫ থেকে ১৬ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেছে এক গাড়ি চালক। মামলা নং ০৬/৬০। গ্রেপ্তার হওয়া ডাকাতরা প্রথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ডাকাতির সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে।
জড়িত আরও কয়েকজন ডাকাত নজরদারিতে আছে, তদন্তের স্বার্থে তাদের নাম প্রকাশ করা হচ্ছেনা। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তদন্তের স্বার্থে প্রয়োজনে গ্রেফতার কৃতদের আদালতে রিমান্ডের আবেদন করা হবে।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহম্মদ মাহবুব আলম খাঁন পিপিএম, ফজল ই খুদা পলাশ, ডিবি ওসি আলহাজ্ব বাবুল উদ্দিন সরদার, ভোলাহাট থানা ওসি মাহবুবুর রহমানসহ জেলার প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।
উল্লেখ্য, সোমবার (২৩ আগস্ট) সন্ধ্যা রাতে ভোলাহাট-কানসাট সড়কে ৩টি ঢাকা কোচসহ প্রায় ৩০টি যানবাহনে গণডাকাতির ঘটনা ঘটে। এঘটনায় ভোলাহাট থানায় একটি মামলা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here