চাঁপাইনবাবগঞ্জে মঞ্চস্থ মুক্তিযুদ্ধ বিষয় নাট্য ‘গৌড় ৭১’

0
47

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমীর আয়ো-জনে মঞ্চস্থ হয়েছে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক নাট্য ‘গৌড় ৭১’।

শুক্রবার (৩১ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা রাতে নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজ মাঠে নাট্যটি মঞ্চস্থ হয়। জেলা কালচারাল অফিসার ফারুকুর রহমান ফসয়াল রচিত নাট্যটিতে জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সদস্যরা অভিনয় করেন।

সহযোগিতায় ছিলেন, জেলা প্রশাসন ও বদ্ধভুমি পরিবেশ থিয়েটার। জেলা প্রশাসক মোঃ মঞ্জুরুল হাফিজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটির ভার্চুয়ালি উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ (শিবগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য ডাঃ সামিল উদ্দীন আহমেদ শিমুল।

বিশেষ অতিথি ছিলেন নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. শংকর কুমার কুন্ডু, আদিনা ফজলুল হক সরকারি কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. মাযহারুল ইসলাম তরু, বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাড. আব্দুস সামাদ।

গোলাম ফারুক মিথুনের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে ছিলেন, প্রফেসর সিরাজুল ইসলাম, কবি এনামুল হক তুফান, সাংস্কৃতিক সংগঠক গৌরি চন্দ সিতুসহ অন্যরা। মঞ্চে থিয়েটার শো’তে গণহত্যার পরিবেশের মধ্য দিয়ে গৌড়ের ইতিহাস তুলে ধরা
হয়েছে। মূলতঃ এসব কারণে থিয়েটার শো’টির নাম গৌড়-৭১ রাখা হয়।

শুক্রবার (৩১ ডিসেম্বর) রাতে নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের মাঠে ঘন্টা
ধরে শো’টি প্রদর্শন করা হয়। থিয়েটার শো’টিতে দেখা যায়, কেচ্ছা কাহিনী দিয়ে আব্দুর রাজ্জাক শো’টি শুরু করেন।

ওই কেচ্ছায় নবাব সেরাজউদ্দোলা থেকে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক নানান দিক তুলে ধরা হয়। কেচ্ছার পর্ব শেষে ল্যাডলি মোহন মৈত্র কোরিওগ্রাফের মাধ্যমে গৌড়ের ইতিহাসের মুল কথাগুলো ফুটিয়ে তুলেন।

তার সাথে মুখ মিলিয়ে ছিলেন প্রফেসর মেসফেকুন সোলেহীন। পাক সেনারা গণহত্যা শুরু করে। শোটিতে ইলামিত্রের সংগ্রাম, দ্রোহ-বিদ্রোহে গণহত্যার ঘটনাচিত্রও তুলে ধরা হয়। চাঁপাইনবাবগঞ্জের রহনপুরে ৭১ সালে গণহত্যার শিকার হয়।

সেখানে গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাবলি ঐতিহাসিক সত্যতায় তুলে ধরা হয়েছে। এ সময়ে পুঁথি পাঠ করছিলেন মাহবুব আলম। তার পুথিঁর পাঠের আসরেও পাক সেনারাও হানা দেয়। এ সময় কয়েকজন শহীদও হন।

থিয়েটার শোটির রচনা ও নির্দশনায় ছিলেন জেলা শিল্পকলা একাডেমির কালচারাল অফিসার ফারুক ফয়সাল। তিনি জানান, মুজিব বর্ষ উপলক্ষে ৬৪ টি জেলায় গণহত্যার পরিবেশ নিয়ে থিয়াটার শো অনুষ্ঠিত হয়।

এ ধারাবাহিকতায় ‘গৌড় ৭১’ থিয়েটার শোটি পরিবেশনা করা হয়। এ থিয়েটার শোতে মোট ১৫০ জন অভিনয় করেন। জেলার রহনপুরে যেহেতু প্রাচীন আমল থেকে রেল স্টেশন আছে। সেখান দিয়ে বাংলার মানুষরা ভারতে আশ্রয়ের জন্য যাচ্ছিল।

সেখানে রাজাকারদের প্ররোচণায় পড়ে পাক সেনারা বেশি হামলা করে। ফলেঅনেক মানুষ মারা যায়। সেই কথাগুলো পরিবশেনা করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, থিয়ে-টার শোটির মুল ভাবনায় ছিলেন শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকি।

তার ভাবনা থেকে থিয়েটারের শোটি লিখা হয়। রহনপুরের গণকবরের স্মৃতির ফলক হয়ে থাকবে গৌড়-৭১ থিয়েটার শো’টি। শোটিতে পাকসেনার মেজর হিসেবে অভিনয় করে মিসবাহুল ইসলাম।

তিনি বলেন, আমি বইতে পড়েছি পাকসেনারা খুব কঠোর ছিল। তাই মঞ্চে সেরকমই অভিনয় করেছি। আগে মানুষ বইতে পড়ে যেগুলা শিখতো, শোটির মাধ্যম দিয়ে সেগুলা বাস্তবে দেখতে পাচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here