চাঁপাইনবাবগঞ্জে শ্বাসরোধ করে স্ত্রীকে হত্যা ॥ ঘাতক স্বামী আটক

0
138

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ চাঁপাইনবাবগঞ্জে শ্বাসরোধ করে স্ত্রী হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামীর বিরুদ্ধে। সোমবার গভীর রাতে পৌর এলাকার গুলবাগ মহল্লায় এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় ঘাতক স্বামী শাহিন আলীকে আটক করেছে পুলিশ। নিহত স্ত্রী দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর থানার পুরাতন রেল বাজার কলোনীর মৃত শহিদুল হকের মেয়ে শামীমা খাতুন সাথী (২৩)।

আটক ঘাতক স্বামী শাহীন আলী (২৩) জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার চরপাকা শ্যামপুর এলাকার বাবুল হকের ছেলে। শাহীন একজন চাকুরীচ্যুত সেনা সদস্য বলেও জানা গেছে।

শামীমা খাতুন সাথীদের আদিবাস দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর থানার পুরাতন রেল বাজার কলোনী হলেও বর্তমানে তাদের বসবাস নওগাঁর সান্তাহারে। পূর্বপরিকল্পিত ভাবে সাথীকে হত্যার অভিযোগ সাথীর পরিবার ও স্থানীয়দের।

সাথী নওগাঁর একজন ভালো মানের শিল্পী ছিলেন। চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর মডের থানার ওসি মোজাফফর হোসেন জানান, সোমবার গভীর রাতে জাতীয় জরুরী সেবা ৯৯৯’র মাধ্যমে এ হত্যাকান্ডের বিষয়ে আমরা জানতে পারি।

এই সংবাদের প্রেক্ষিতে সদর মডেল থানার একটি পুলিশ টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছে ঘাতক স্বামী শাহিন আলীকে আটক করে এবং লাশের সুরতহাল রির্পোট শেষে ময়না তদন্তের জন্য লাশ থানায় নিয়ে আসে।

তিনি আরও জানান, প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে, পারিবারিক কলহের জেরেই স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটানো হয়েছে।

এ বিষয়ে সদর মডেল থানায় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। তিনি আরও জানান, ওই দম্পতি পৌর এলাকার গুলবাগ মহল্লার সাইফুল ইসলাম ওরফে মাসুদের বাড়ি তে ভাড়া ছিলো।

‘সিগনাচার মিউজিক্যাল ব্যান্ড’র প্রধান উপদেষ্টা সিনিয়র সাংবাদিক ইমরুল কায়েস বলেন, শামীমা খাতুন সাথীদের আদিবাস দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর থানার পুরাতন রেল বাজার কলোনী হলেও বর্তমানে তাদের বসবাস নওগাঁর সান্তাহারে।

সাথী একজন ভালো মানের শিল্পী। ফেসবুকে বন্ধুত্ব হয়ে একপর্যায়ে সাথীকে বিয়ে করে শাহীন। বিয়ের সময় শাহীনের আগের স্ত্রী আছে, সেকথা গোপন রাখে।

শাহীন সেনাবাহিনীতে চাকুরী করা অবস্থায় পূর্বের স্ত্রীর বিনা অনুমতিতে সাথীকে বিয়ে করলে, আগের স্ত্রী অভিযোগ দায়ের করে। প্রেক্ষিতে চাকুরী থেকে বরখাস্ত হয় শাহীন। চাকুরীচ্যুতির পর সান্তাহারে সাথীকে নিয়ে ভাড়া বাসায় বসবাস শুরু করে শাহীন।

এরই মধ্যে সাথীর একটি সন্তানও জন্ম নেয়। সন্তানের বয়স প্রায় এক বছর।কিছুদিন যেতে না যেতেই সাথীর উপর নির্যাতন শুরু করে শাহীন। নির্যাতনের মাত্রা অতিরিক্ত হলে থানায় অভিযোগ করা হয়।

কৌশলে শাহীন ও তার পরিবারের লোকজন স্থানীয়ভাবে বিষয়টি মিমাংসা করে। কিন্তু শাহীন আগের মতই সাথীর উপর নির্যাতন চালাতে থাকে। তিনি বলেন, বেশ কয়েকবার তাদের সংসাদের বিবাদ মিমাংসা করা হয়েছে।

এরই মধ্যে শাহীন ও শাহীনের পিতা সাথীর সাথে কৌশলে ভালো ব্যবহার শুরু করে
এবং কয়েকদিন আগে ফুসলিয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ নিয়ে যায় শাহীন ও শাহীনের পিতাসহ পরিবারের লোকজন।

তিনি বলেন, পূর্বপরিকল্পিতভাবে শাহীন ও শাহীনের পিতা সাথীকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ নিয়ে গিয়ে হত্যা করেছে।

একজন শিল্পী ও স্ত্রী হত্যকারী প্রতারক শাহীনের এবং এঘটনার সাথে জড়িত শাহীনের পিতাসহ অন্যান্যদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here