ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের দৃষ্টি নন্দিত ক্যাম্পাস !

0
170
অনিন্দন সুন্দর প্রকৃতির লীলাভূমি ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। মনোমুগ্ধ-কর আয়োজন ও প্রকৃতির সুনীলভ আচ্ছাদন, এখানে জ্ঞান পিপাসীদের হাত বাড়িয়ে ডাকে। সত্যিক যে, ব্যক্তি মাত্রই এই ক্যাম্পাস টির সৌর্ন্দয্যে বিমূহীত হবেন।

ড্যাফোডিল পরিবার মূলতঃ শিক্ষা বিস্তারের বাতিঘর। এখানে ছোট্র বড় মিলিয়ে প্রায় ১৪টির ও অধিক প্রতিষ্ঠান রয়েছে- যারা বাংলা দেশে শিক্ষা বিস্তারে নির্লস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। সারা দেশে শিক্ষা বিস্তারে ড্যাফোডিল পরিবারের অবদান অনিস্বীকার্য।

এখানকার শিক্ষক-ছাত্র/ছাত্রী, প্রশাসন-কর্মচারী ও কর্মকর্তাদের মধ্যে রয়েছে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক। আত্মীক ও বন্ধুত্বর্পূন বাক্য-আলাপে ‘ ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয় সর্বদা জ্ঞান-সুধা প্রসারে প্রসন্ন।

বর্তমান সময়ে সবচেয়ে আলোচিত ‘পাশ্চাত্যের অনুকরণে প্রতিষ্ঠিত স্বদেশী কালচারের এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি যে কোন আন্তজার্তিক কিম্বা দেশী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কাছে রুল-মডেল। মেধা-মননশীলতা, নীতি-নৈতিকতা আর হাতে-কলমের প্রযুক্তিগত শিক্ষা অন্য যেকোন বিশ্ববিদ্যালয়ের চেয়ে শ্রেষ্ঠত্বের দাবি রাখে।

বিশ্ববিদ্যালয়টির দ্রুত প্রসার ও বিকাশের ‘মন্ত্র বাক্য ড্যাফোডিল গ্রুপের চেয়ারম্যান ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী জনাব সবুর খান সাহেবের আত্ম-বানী। সবুর খান সাহেবের অর্পূব দূরদশীর্তা, সু-শীল চিন্তাধারা এবং আধুনিক জ্ঞান অন্বেষার প্রবল প্রকাশ ঘটেছে ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা ও বিকাশে।

সব মিলিয়ে প্রায় (২১০০০) একুইশ হাজার ছাত্র/ছাত্রী নিয়ে ড্যাফো-ডিল বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশে শিক্ষা বিস্তারের ল্যান্ড-মার্ক। ঢাকার অ-দূরে সাভারের আশুলীয়ায় ‘ড্যাফোডিল স্মার্ট সিটির ক্যাম্পাসটি দৃষ্টি নন্দিত; সর্বগুনে গুনান্বিত শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপিঠ।

উল্লেখ্য, হাজার ছাত্র/ছাত্রী ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয় হতে শিক্ষা জীবন সমাপ্ত করে দেশ তথা আন্তজার্তিক পরিমন্ডলে সু-শীল জ্ঞান অন্বেষায় ড্যাফোডিল পরিবারের প্রতিনিধিত্ব করছে যা অন্যান্যদের অনুকরনীয় দৃষ্টান্ত হতে পারে।
# মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম/বাংলাটপনিউজ২৪.কম #

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here