ডিঙ্গামানিক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ১২ মেম্বারের অনাস্থা

0
26

শরীয়তপুর প্রতিনিধি: নড়িয়া উপজেলার ডিঙ্গামানিক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ সরদারের বিরুদ্ধে অনিয়ম, দুর্নীতি, অর্থ আত্মসাৎ ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ উঠেছে।

চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে শরীয়তপুর জেলা ও নড়িয়া উপজেলা প্রশাসনের নিকট লিখিত অনাস্থা প্রকাশ করে ছেন পরিষদের সকল সদস্যরা। ফলে ডিঙ্গামানিক ইউনিয়ন পরিষদের সকল প্রকার কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়েছে। ভোগান্তিতে পড়েছে ডিঙ্গামানিক ইউনিয়নের সাধারণ মানুষ।

পরিষদের সদস্যদের লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, দায়িত্বভার গ্রহণের পর থেকে চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ সরদার অন্যান্য সদস্যদের মতামত উপেক্ষা করে বরাদ্দকৃত টিআর, কাবিখা ও কাবিটা থেকে প্রাপ্ত বরাদ্দ একক সিদ্ধান্তে ব্যায় করেন।

এ ছাড়াও নাগরিকত্ব সনদ, ওয়ারিশ ও জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনের জন্য ইউনিয়নবাসীর কাছ থেকে অর্থ গ্রহণ করে থাকেন চেয়ারম্যান। এই সকল অনিয়মের কারণে ইউনিয়নের দীর্ঘ দিনের সুনাম নষ্ঠ হতে চলেছে।

ডিঙ্গামানিক ইউপি সদস্য জসিম মাল ও মো. আলী ঢালী জানান, চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ সরদার স্বেচ্চারী হয়ে উঠেছে। সংরক্ষিত সদস্য ও সাধারণ সদস্যদের সমন্বয়ে কোন সভাও তিনি করেন না। কোথা থেকে কি কি বরাদ্দ এসেছে তাও অন্যান্য সদস্যদের জানানো হয় না। তার একক সিদ্ধান্তে নামমাত্র প্রকল্প গ্রহন করে তিনি সিংহভাগ অর্থ আত্মসাৎ করেন।

এছাড়া টাকা ছাড়া পরিষদ থেকে কোন সেবা প্রদান করেন না। এতে আমাদের পরিষদের সুনাম ক্ষুন্নের পাশাপাশি আমাদেরও জনপ্রিয়তা দিন দিন কমতেছে।

ডিঙ্গামানিক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ সরদার জানান, আমি পানি সম্পদউপমন্ত্রী মহোদয় ওনড়িয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক হাসানুজ্জামান খোকনের মতামতের বাহিরে কোন কিছু করি না। আমার পরিষদের সদস্যরা কি জন্য মনক্ষুন্ন হয়েছে তার খোজ নিয়ে দেখব।

নড়িয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক হাসানুজ্জামান খোকন জানান, অভিযোগের বিষয়ে শুনেছি। কেন নিজেদের মধ্যে এমন অভিযোগ হয়েছে উভয় পক্ষকে নিয়ে বসে জানার চেষ্টা করব।

বিষয়টি যেন বাড়তে না পারে সেই দিকে খেয়াল রেখে সমাধানের চেষ্টা করবো।তবে জেলা প্রশাসক ও নড়িয়া উপজেলা প্রশাসন এই বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে রাজী হয়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here