জাপান প্রবাসী সেই নারীর বাড়িতে এবার ডাকাতি

0
112

শরীয়তপুর প্রতিনিধি ॥ জাজিরা পদ্মাসেতু এলাকার পশ্চিম নাওডোবা মৌজায় জমি কিনে এক জাপান প্রবাসী নারী প্রতারিত হয়েছেন। এবার সেই নারীর বসত বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। বাড়ির কেয়ারটেকার কে বেঁধে রেখে ডাকাতদল এই ডাকাতি করেছে।

নগদ অর্থ, স্বর্ণালংকার ও মূল্যবান কাগজপত্র নিয়ে গেছে ডাকাত দল। ডাকাতির সময় জাপান প্রবাসী নারী বাড়িতে না থাকায় প্রাণে বেঁচেছে বলে ধারণা করেছে এলাকাবাসী। ঘটনাস্থল পুলিশ পরিদর্শণ করেছে। অভিযোগ পেলে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জানাগেছে, জাপান প্রবাসী নারী মায়া বেপারী (৪৫) মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার কাঠাল বাড়ী গ্রামের মৃত মোহাম্মদ আলী বেপারীর মেয়ে। মায়া বেপারী দীর্ঘদিন ধরে জাপান প্রবাসে রয়েছেন। তার ছেলে ও মেয়ে জাপান প্রবাসী। মায়া বেপারী মধ্যে দেশে ফিরে পদ্মা সেতু এলাকায় জমি ক্রয় করেন।

তা দেখে এলাকার কতিপয় দুষ্ট প্রকৃতির লোক তার কাছ থেকে অর্থ দাবী করেন। ইতোমধ্যে মায়া বেপারীর ক্রয়কৃত ২টি জমিও তারা দখল করতে চেষ্টা করে। রাতের আধারে সেই জমি ভড়াটেরও চেষ্টা করে। গত মঙ্গলবার মায়া বেপারী তার বসত বাড়ি সংলগ্ন আরো একটি জমি ক্রয় করে রেজিস্ট্রি করেন।

পরে তিনি ঢাকার বাসায় চলে যান। সেই রাতেই ডাকাত দল মায়া বেপারীর বাড়ি এসে কেয়ারটেকারকে বেঁধে রেখে বাড়িতে ডাকাতি করে।

প্রবাসী নারী মায়া বেপারী বলেন, আমি জাপানে চাকুরী করে দেশে টাকা আনি। সেই টাকায় জমি ক্রয় করি। আমিতো কোন দুর্নীতি করি না। আমি জমি কিনতে টাকা পাই কই তা নিয়ে মানুষের মাথা ব্যাথা। অনেকে আমার কাছে জমি বিক্রি করে আবার বেশী দামে অন্যত্র বিক্রি করে দেয়।

কেউ আবার আমার ক্রয়কৃত জমি দখল করতে চেষ্টা করে। আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। এবার আমার বাড়িতে ডাকাতি করে নগদ ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা, ৬ ভরি স্বর্ণ ও জমির গুরুত্বপূর্ন কিছু কাগজ নিয়েগেছে। আমি বাড়ি না থাকায় ডাকাত দল আমার কোন ক্ষতি করতে পারেনি। আমাকে পেলে হয়তো খুন করতে পারতো। আমি প্রশাসনের কাছে জানের নিরাপত্তা চাই।

কেয়ার টেকার জানায়, সে রাতে একাই ঘরে ঘুমিয়ে ছিল। ৪-৫ জনের একটি ডাকাতদল এসে প্রথমে তার মুখ ও চোখ বেঁধে ফেলে। পরে তাকে মারধর করে আলমারি, ট্র্যাং ও সিন্দুকের চাবি নিয়ে যায়। ডাকাতদল ডাকাতি শেষে চলে গেলে সে ডাক চিৎকার করে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনকারী পুলিশ উপপরিদর্শক বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। প্রবাসী সেই নারীকে অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here