মানুষ মানুষের জন্য !

0
91

বিজ্ঞানে ‘সমসত্ত্ব’ বলে একটি কথা আছে। যাতে বলা হয়েছে, প্রতিদ্বন্দিতাপূর্ন সমশক্তির কার্যকারণ ভয়ন্কর। কোন কোন ক্ষেত্রে তা হতে পারে ‘অন্ত:সার শূন্য’। ধর্ম বিশ্বাসে বলা হয় ‘সৃষ্টিকর্তা কোন বস্তুকেই একক সমান গুন বা বৈশিষ্টে’ সৃষ্টি করেন নাই। সৃষ্টির ভিন্নতায় প্রত্যেকেই  ‘স্বতন্ত্র’ বৈশিষ্টের অধিকারী

ইসলাম ধর্ম মতে, মানুষ-ফেরেস্তা-আলোক; সকল ক্ষেত্র বিশেষ-ভিন্নতর।  স্বর্গ-নরকে, আকাশ-পাতালে পাথর্ক্য যেমন আছে; তেমনী জীবন বৈচিত্রেও পার্থক্য দিদিব্যমান। জীবকূ’লের অন্ত বিচারে, শ্রেষ্ঠ মানুষ। সেই মানুষ-মানুষের মধ্যেও যথেষ্ট পাথর্ক্য রয়েছে- সৃজন দার্শ নিকতা বা কর্ম বিচারে।

এই ধরণী পরীক্ষারচারণ ভূমি- সেই কারনেই, সংশোধিত শক্তিকে বৃহত্তর শক্তি বা পবিত্র শক্তি তে বিলিন হওয়ার সুযোগ দেয়া হয়েছে-যাকে ‘মুক্তি’ হিসাবে কল্পনা করা যায়। আর এই মুক্তির লক্ষ্যেই প্রত্যেকটি জীবন-সংগ্রামে ব্যতি-ব্যস্ত। কাজেই বলা যায়- জন্মের স্বার্থকতা বৃহত্তর বা পবিত্র শক্তিতে বিলিন হওয়া। এটাই সৃষ্টির স্বার্থকতা। কবির ভাষায়-

‘মুখর নুপুর বাজিছে সুদুর আকাশে
অলকগন্ধ উড়িছে মন্দ বাতাসে
মধুর নৃত্য নিখিল চিত্তে বিকাশে
কত মঞ্জুল রাগিনী ?

কত না বনে, কত-না স্বর্নে গঠিত
কত যে ছন্দে, কত না সংগীতে রটিত
কত না গ্রন্থে. কত না কন্ঠে পঠিত
তব অসংখ্য কাহিনী।
জগতের মাঝে কত বিচিত্র তুমি হে,
তুমি বিচিত্ররুপিনী’।

সৃষ্টির রহস্যের কারনেই প্রতিটি জীবন-জীব বৈচিত্রে এক ভিন্নতর বৈশিষ্টের অধিকারী। একটি নিদিষ্ট নিয়ম নীতি বা সীমা রেখায় জীবন-শ্রষ্টার মন্ত্রখেলা। এই মায়াবী ছলখেলাই; শ্রষ্টার জগত পরিচালনার মন্ত্রকর্ম। বিকাশ কাল হতে অনন্তকাল অব্দি এই খেলা চলছে/চলবে শ্রষ্টার খেয়ালীপনায়। ঠিক যেন জলের সাথে তরঙ্গের মিতালী মনোহর। কবির চিন্তায়–

‘সীমার মাঝে অসীম তুমি বাজাঁও আপন স্বর
আমার মাঝে তোমার প্রকাশ তাই তো এতো মধূর’।

কল্পনা করা হয়-মানব জীবনেও, সমশক্তির সর্ম্পক অপ্রাপ্তিতে র্ঘুণায়নরত। জীবনের কাছে জীবন আপেক্ষীক-না হলে, শ্রষ্টার সৃষ্টিতত্ত্ব অলৌকিকতায় সীমাবন্ধ থাকত। কিন্তু জীব হিসাবে প্রত্যেক জীবনই জীবনের গর্ভে জন্ম নেয়। এটি শ্রষ্টার অন্তরমন্ত্র।

বুদ্ধরা বলেছেন, সকলের তরে সকল মোরা প্রত্যেকে মোরা পরের তরে। সুখ দুঃখের চারণভূমি জগত সংসারে নারী/পুরুষ একে অপরের অবিচ্ছেদ্য রুপ। এই রুপের বহুমাত্রিকতা ভালবাসায় রুপায়িত। তাই বলা হয়-নিখিল বিশ্বের সৃজনকর্তা মহাপ্রভুর সারতত্ত্ব ভালবাসার অসীমতায় বিলিন।

কয়েক দিন আগে আমার এক পরিচিত সুহৃদ-নারীর সামাজিক মর্যাদা সম্পর্কীত রবী ঠাকুরের কয়েক চরন উল্লেখ্যপূর্বক আক্ষেপ করে ছিলেন। তার ভাবনার বিপরীতে আমি নজরুলের পুজারীনি কবিতার কয়েক চরণ তুলে ধরে ছিলাম যা ছিল ভাবনার ব্যতিক।

আসল কথা নারী ও পুরুষের পার্থক্য পারস্পারিক ভাব-আবেগে প্রকৃতস্থ্য। যা ভালবাসার বৃহত্তর ভাবনায় সলিল। তথাকথিত সামাজিক চিন্তার এই বিষয়ে, আত্ম -সমর্পনের মধ্যেই শ্রেষ্ঠত্বের পরিচয় মিলে। কে কার কাছে আগে আত্ম সমর্পন করে সেই বিষয়ের উপর-মহাত্ম দাবি। অনন্ত তত্ত্ব মতে, ‘লিঙ্গ বিচার ব্যতিক ভাবনা, মানুষ হিসাবে আমরা সকলেই সমান-এক শ্রষ্টাই সৃষ্টি। কবি বলেছেন-

‘পাদ প্রান্তে রাখি‘ সেবকে
শান্তিসদন সাধনধন দেবদেব হে’
সর্ব লোকপরমশরন সকল মোহ কলুষ হরণ
দুঃখতা পরিঘœতরন, শোক শান্তি সিগ্ধচরণ
সত্যরুপ প্রেমরুপ হে,
দেবমনুজবন্দিত পদ বিশ্বস্বামী হে’

শেষ প্রণতি, সৃষ্টির কারণেই আমরা এক অপরের প্রতি নির্ভরশীল। নারী/পুরুষ, জাতি/ধর্ম, ধনী/দরিদ্র, সবল/দুর্বল এই সকল ভাবনা ভাববাদী সংর্কীনতায় সীমাবদ্ধ। ভালবাসাপূর্ন হৃদয়ের আদান-প্রদানই শ্রেষ্ঠজনের পরিচয়। কাজেই লিঙ্গ বিচার নয় অনন্তের প্রকাশ-বিকাশ –ভাবনাও মুক্তিই জীবকূলে মূখ্য চিন্তা হওয়া বাঞ্চনীয়। কবির কবিতায়—

নির্ভয়ে চলিতে হবে, সত্যের করিয়া ধ্রুবতারা
মৃত্যুকে না করি শংকা। দুর্দিনের অশ্রুধারা
মস্তকে পড়িবে ঝরি-তারি মাঝে যাব অভিসারে
তার কাছে! জীবন সর্বস্বধন অর্পিয়াছি যারে
জন্ম জন্ম ধরি। কে সে? জানি না কে।
চিনি নাই তারে—।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here