প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘড়ে সুপেয় পানির ব্যবস্থা করে দিলেন ইউএনও মুহাম্মদ মনসুর

0
74
শাহিনু্র ইসলাম প্রান্ত, লালমনিরহাটঃ জমি আছে ঘর নেই প্রকল্পের আওতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহারের ঘরের পাশে সুপেয় পানির ব্যবস্থা করেছেন লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মুহাম্মদ মনসুর উদ্দিন।
জানা গেছে, জমি আছে ঘর নেই এমন দুস্থ পরিবারকে জমি আছে ঘর নেই প্রকল্পের আওতায় সারা দেশে দুস্থ্যদের একটি করে ঘর উপহার দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। টিনের ছাউনী দেয়া প্রতিটি পাকা ঘর নির্মাণে ব্যায় ধরা হয় এক লাখ ২০ হাজার টাকা। এক কক্ষ বিশিষ্ট এ ঘরের পাশেই দেয়া হয়েছে স্বাস্থ্য সম্মত একটি পায়খানা।
এ প্রকল্পের আওতায় আদিতমারী উপজেলায় ৫০টি দুস্থ পরিবারকে একটি করে ঘর উপহার দেয়া হয়। যার নির্মাণ কাজ শেষ করে সুফল ভোগিদের কাছে হস্তান্তর করেন উপজেলা প্রশাসন। প্রধানমন্ত্রীর সেই ঘরের পাশে টয়লেট রাখা হলেও নেই পানির কোন ব্যবস্থা। ফলে বসবাসের অত্যবশ্যক প্রয়োজনীয় সুপেয় পানির অভাবে সুফল ভোগিদের অনেকেই দুর্ভোগে পড়েন।
কিছু সুফল ভোগি পাশের বাড়ি থেকে পানি সংগ্রহ করলেও অধিকাংশ পানি সংকটে পড়ে। প্রধানমন্ত্রীর উপহার প্রাপ্ত এসব সুফল ভোগির দুর্ভোগের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(ইউএনও) মুহাম্মদ মনসুর উদ্দিন তাদেরকে একটি করে টিউবয়েল দিয়ে সুপেয় পানির ব্যবস্থা করার উদ্যোগ নেন।
উপজেলা প্রশাসনের গৃহীত উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর বেঁচে যাওয়া অর্থ ও নিজেস্ব তহবিল থেকে বরাদ্ধ দিয়ে ঘর পাওয়া প্রতিটি পরিবারকে একটি করে টিউবয়েল প্রদান করা হয়। টিউবয়েলই শুধু নয়, প্রতিটি টিউবয়েলের গোড়া পাকা করে সুপেয় পানির ব্যবস্থা করেন ইউএনও মুহাম্মদ মনসুর উদ্দিন। ঘরের সাথে সুপেয় পানির ব্যবস্থা সারা দেশের মধ্যে এটি একটি ব্যাতিক্রম উদ্যোগ। সরকারী বরাদ্ধের অতিরিক্ত সুপেয় পানির ব্যবস্থা পেয়ে বেশ খুশি সুফল ভোগিরা।
ঘর ও সুপেয় পানির ব্যবস্থা পেয়ে প্রধানমন্ত্রী ও ইউএনও’র প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে সুফল ভোগী সারপুকুরের তালুক হরিদাস গ্রামের শিল্পী বেগম বলেন, পলিথিনে ঘেরা ঝুঁপড়ি ঘরে থাকতাম। বৃষ্টির রাতে ঘুমও হতো না। কষ্টের এ জীবনে পাকা ঘরে থাকতে পারবো স্বপ্নেও ভাবি নাই। ঘরের সাথে পানির ব্যবস্থা করায় আর কোন কষ্ট থাকলো না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ইউএনও স্যারের জন্য সারা জীবন দোয়া করবো। আল্লাহ যেন তাদেরকে দীর্ঘ জীবন দান করেন।
মহিষখোচার আসিদা বেগম বলেন, স্বামীর মৃত্যুর পর সন্তানদের নিয়ে নিদারুন কষ্টে কাটিয়েছি। এখন সরকারী ঘর ও পানির ব্যবস্থা করায় আর কোন কষ্ট থাকলো না।
আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(ইউএনও) মুহাম্মদ মনসুর উদ্দিন  বলেন, জমি আছে ঘর নেই প্রকল্পের আওতায় আমরা ৫০টি দুস্থ পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের বরাদ্ধ থেকে স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানাসহ একটি করে পাকা ঘর নির্মান করে দিয়েছি। সুফল ভোগি পরিবারগুলো সুপেয় পানির অভাবে দুর্ভোগে পড়েছিল। তাদের দুর্ভোগ লাঘবে ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সুপেয় পানির ব্যবস্থা করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here