সাটুরিয়ায় স্বাধীনতা দিবসে শহীদ ভেদীতে পুস্প অর্পন নিয়ে সংর্ঘষ আহত-৫

0
103

মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলায় স্বাধীনতা দিবসে  ফুল দেওয়াকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে আহত হয়েছেন অন্তত পাঁচজন।

আজ  শনিবার (২৬ মার্চ) সকালে সাটুরিয়া উপজেলা পরিষদ শহীদ মিনার চত্বরে বালিয়াটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. রুহুল আমিন এবং সদ্য বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান মীর সোহেল আহমেদ চৌধুরীর সমর্থকদের মধ্যে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা জানান, মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে সাটুরিয়া উপজেলা প্রশাসন শনিবার সকালে শহীদ মিনারে বীর শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে পুষ্পস্তবক অর্পণ কর্মসূচি শুরু করে।

এর একপর্যায়ে নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান বালিয়াটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. রুহুল আমিন। এরপর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ব্যানারে শ্রদ্ধা জানাতে আসেন সদস্য বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক মীর সোহেল আহমেদ চৌধুরী।

কিন্তু ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের পক্ষে দুইবার ফুল দেওয়াকে কেন্দ্র করে  রুহুল আমিন ও সোহেল গ্রুপের মধ্যে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে সংঘর্ষে জড়ান দুইপক্ষের নেতাকর্মীরা।

প্রায় ৩০ মিনিট ধরে চলা ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ।  এই সংঘর্ষে বালিয়াটি ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন ও ফুকুরহাটির যুবলীগ নেতা নাজমুল হোসেনসহ অন্তত পাঁচজন আহত হন। এর মধ্যে নাজমুলকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে বালিয়াটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. রহুল আমিন বলেন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেছি। এরপর আওয়ামী লীগের ব্যানারে বহিষ্কৃত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মীর সোহেল আহম্মেদ চৌধুরী ও তার সমর্থকরা পুনরায় পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এটা তো হতে পারে না।

সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বালিয়াটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মীর সোহেল আহম্মেদ চৌধুরী বলেন, আমি ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে শহীদ বেদীতে পুষ্প-স্তবক অর্পণ করি।

পরে আওয়ামী লীগের ব্যানারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করি। এতে দোষের কি? এই জন্য আমার উপর বর্বর আক্রমন হয়েছে। আমি প্রধানমন্ত্রীসহ দেশবাসীর কাছে এর সুষ্ঠ সমাধান চাই।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here