সুন্দরবনে মধু আহরণ মৌসুম শুরু ১ হাজার ৪০০ কুইন্টাল লক্ষ্যমাত্রা

0
52
শেখ সাইফুল ইসলাম কবির: সুন্দরবন মধু আহরণ মৌসুম  প্রতি বছরের মতো বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) শুরু ১ হাজার ৪০০ কুইন্টাল আহরণের  নিয়ে শুরু হচ্ছে মধু আহরণ মৌসুম। এ উপলক্ষে প্রতিবছরের মতো এ বছরও মৌয়ালদের অনুমোদন দেয়া শুরু করেছে বাগেরহাট পূর্ব সুন্দরবন বিভাগ।
এরই মধ্যে মহাজনদের কাছ থেকে দাদন নিয়ে সুন্দরবনে যাওয়ার সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের প্রায় পাঁচ হাজার মৌয়াল। বনে যাওয়ার পাস পারমিটের জন্য অপেক্ষা করছেন তারা।
বাগেরহাট পূর্ব সুন্দরবন বিভাগ সূত্রে জানা যায়, এপ্রিল থেকে জুন মাস পর্যন্ত সুন্দরবনে মধু আহরণের মৌসুম। এ জন্য বাগেরহাট পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের বিভিন্ন রেঞ্জের স্টেশন অফিসগুলোতে ওই দিন থেকেই পাস-পারমিট দেয়া শুরু হবে।
এ বছর ১ হাজার ৪০০ কুইন্টাল মধু এবং ৪৫০ কুইন্টাল মোম আহরণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর আগে ২০১৯-২০ অর্থবছরে লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৮০০ কুইন্টাল মধু এবং ৩০০ কুইন্টাল মোম। ওই বছর আহরণ করা হয়েছিল ১ হাজার ২২০ কুইন্টাল মধু ও ৩৬৬ কুইন্টাল মোম।
মৌয়ালদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মৌসুমের শুরুতে খলিশা ফুলের মধু আসে। এর পর আসে গারণ ফুলের। শেষে আসে কেওড়া ও ছইলা ফুলের মধু। এই তিন প্রজাতির মধুর মধ্যে সবচেয়ে দামী হচ্ছে খলিশার মধু।কিন্তু এ বছর এ অঞ্চলে কোনো বৃষ্টি হয়নি। আর বৃষ্টি না হওয়ায় ফুল শুকিয়ে ঝরে যায়, তাই মধু কম জমে। তাই এ বছর মধু কম হওয়ার আশঙ্কা করছেন তারা। মধু আহরণে নৌকা নিয়ে মধু আহরণে যাচ্ছেন মৌয়ালরা।
বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার  মৌয়াল  আব্দুল জলিল তালুকদার বলেন, পারমিট নিয়ে বনে যাব। আমার নৌকায় ১২জন সহযোগী আছেন। মৌসুমের তিন মাসে মধু আহরণ করতে গিয়ে প্রত্যেক মৌয়ালের খরচ হয় ১২ থেকে ১৫ হাজার টাকা। এবার বৃষ্টি নেই। তাই মধু কেমন হবে তা বলা যাচ্ছে না।’
শরণখোলার খুড়িয়াখালী গ্রামের মধু ব্যবসায়ী রাসেল আহমেদ জানান, তিনি এ বছর তিনটি নৌকায় দুই লাখ টাকা বিনিয়োগ করেছেন। বৃষ্টি না হওয়ায় বেশি বিনিয়োগের সাহস পাননি তিনি।
একই উপজেলার মৌয়াল সোবাহান হাওলাদার জানান, তার নৌকায় ১০ জন মৌয়াল আছেন। মৌসুমের প্রথম দিনেই তারা পাস নিয়ে বনে যাবেন। তারা গহীন বন থেকে মধু সংগ্রহ করবেন। গত বছর ২৫ হাজার টাকা মণ দরে মধু বিক্রি করেছেন তিনি।
খুলনা পলিটেকনিক্যাল কলেজের ছাত্র শেখ রাহাতুল ইসলাম জয়  জানান, মধু সংগ্রহ করতে গিয়ে বাগেরহাটের কতশত মৌয়ালের প্রাণ গেছে তাদের খোঁজ নেয় না কেউ। দেয় না প্রয়োজনীয় সাহায্য সহযোগিতা। এই সুন্দর বন উপকূলে রয়েছে এমন শতশত বাঘবিধবা যাদের স্বামীরা গেছে বাঘের পেটে। তারা এখনও অন্য মৌয়াল দের কথা চিন্তা করে। যারা বাঘ বিধবা হয়নি সেসব নারীরা এতিম না হওয়া সন্তানরা চোখের পানিতে বিদায় দেয় মৌয়ালদের মধু সংগ্রহে যাওয়ার সময়।
বুড়িগোয়ালিনীর এনামুল ইসলাম বলেন, মধু সংগ্রহ করে মৌয়ালরা কিন্তু লাভ পায় মধ্যস্বত্বভোগীরা তাই মৌয়াল পরিবারদের দাবি তাদের এলাকায় যদি সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ের কুরিয়ার বা ডাক ব্যবস্থা থাকতো তাহলে তারা উপকৃত হতো।
বাগেরহাট পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা বেলায়েত হোসেন বলেন, ‘সুন্দরবনে মধু আহরণের জন্য বন বিভাগের পক্ষে থেকে মৌয়ালদের কিছু নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
‘এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো-সংরক্ষিত অভয়ারণ্য থেকে মধু আহরণ করা যাবে না এবং কোনো মৌয়াল নিষিদ্ধ বনাঞ্চলে প্রবেশ করলে তাৎক্ষণিক তার পারমিট বাতিল করা হবে।
এ ছাড়া মৌয়ালরা মৌমাছি তাড়াতে অগ্নিকুণ্ড, মশাল বা অনুরূপ কোনো দাহ্য পদার্থ এবং রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার করতে পারবেন না। এগুলোসহ ৯টি নির্দেশনা দেয়া হয়েছে মৌয়ালদের।’ তিনি আরও জানান, এবার বৃষ্টি না হওয়ায় মধু আহরণের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক থাকবে কি না তা আগে বলা যাচ্ছে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here